For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS  
For Daily Alerts

স্ন্যাকস খেয়েও কমবে ওজন! জেনে নিন কোন স্ন্যাকসগুলো খাবেন

|

ওজন কমানোর চিন্তা করলে আমাদের মাথায় প্রথম যেটা আসে, তা হল ডায়েট। ডায়েট ছাড়া ওজন কমানো অসম্ভব। অনেকেই ভাবেন ডায়েট মানেই তো একপ্রকার খাওয়াদাওয়া বন্ধ করে দেওয়া। এটা খাওয়া যাবে না, ওটা খাওয়া যাবে না। তার সঙ্গে পরিমাণও মেনে চলতে হয়। ডায়েটে অনেক খাবারে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও অনেক খাবার কিন্তু আপনাকে ওজন কমাতে সাহায্য করবে। শুধু জানতে হবে কোন খাবারটা দরকার আপনার।

আজ আমরা এই আর্টিকেলে কিছু স্বাস্থ্যকর, ওয়েট লস ফ্রেন্ডলি স্ন্যাক্স-এর কথা বলব, যেগুলি আপনি আপনার ডায়েট অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। ওজন বাড়ার চিন্তা না করে স্বচ্ছন্দ্যে খেতে পারেন এগুলো।

কেন স্ন্যাকস খাবেন

কেন স্ন্যাকস খাবেন

লাঞ্চ এবং ডিনারের মাঝে স্ন্যাক্সস অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটা আপনার খিদে কম করে। বিকেলে যদি স্ন্যাকস খান তাহলে আর ডিনারে বেশি খাবার খাওয়ার প্রয়োজন পড়বে না। সেইসঙ্গে নিউট্রিশন পেয়ে যাবে আপনার শরীর।

স্ন্যাকস এমন পছন্দ করবেন যাতে প্রোটিন, ফ্যাট বা ফাইবার থাকবে। এই উপাদান সমৃদ্ধ খাবার হজম হতে সময় নেয়। ফলে অনেকক্ষণ খিদে পাবে না। দিনে দু'বার স্ন্যাকস খেতে পারেন। তবে খেয়াল রাখবেন ২০০ ক্যালোরির বেশি যেন না হয় কোনও স্ন্যাক্সস।

১) বাদাম মিক্সড

১) বাদাম মিক্সড

বাদাম স্বাস্থ্যের পক্ষে ভীষণ উপকারি। এটা হার্টের রোগ, ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। এছাড়া বিষণ্ণতা দূর করে বাদাম। এতে থাকে স্বাস্থ্যকর ফ্যাট, প্রোটিন এবং ফাইবার। এতে ফ্যাট থাকলেও পরিমিত বাদাম খেলে ওজন বাড়ে না।

২) গ্রিক দই ও মিক্সড বেরি

২) গ্রিক দই ও মিক্সড বেরি

প্লেন গ্রিক দই নিয়ে তাতে কয়েকটা বেরি মিশিয়ে খান। গ্রিক দই প্রোটিনের পাশাপাশি ক্যালসিয়াম ও পটাসিয়ামের উৎস। ১০০ গ্রাম গ্রিক দই নিন, তাতে ৫০ গ্রাম বেরি কেটে মিশিয়ে নিন।

৩) আপেল ও পিনাট বাটার

৩) আপেল ও পিনাট বাটার

আপেলে থাকে ফাইবার ও পলিফেনল অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, যা হার্টের সমস্যা দূর করে। পিনাট বাটারেরও স্বাস্থ্যগুণ রয়েছে। এতে থাকে হাই ক্যালোরি। একটি মিডিয়াম সাইজের আপেল কেটে তার সঙ্গে ১ টেবিল চামচ পিনাট বাটার মেশান। খেতে দারুণ লাগবে।

৪) পনির

৪) পনির

ডায়েটের সময় প্রোটিনের ভারসাম্য ঠিক রাখা খুব দরকার। পনির প্রোটিনের দারুণ উৎস। পনিরের সঙ্গে ফ্ল্যাক্স সিড মিশিয়ে নিন। সামান্য দারুচিনি গুঁড়ো দিয়ে দেবেন।

৮০ গ্রাম পনিরের সঙ্গে ১ টেবিল চামচ ফ্ল্যাক্স সিড ও আধা চা চামচ দারুচিনি গুঁড়ো মেশান।

৫) ডার্ক চকোলেট ও আমন্ড

৫) ডার্ক চকোলেট ও আমন্ড

চকোলেট খেলেই মোটা হয়ে যাবেন এই ধারণা পুরোপুরি ঠিক নয়। ডার্ক চকোলেট ওজন কমাতে সাহায্য করে। এতে থাকে ম্যাগনেশিয়াম। আমন্ড খেলে ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে থাকে।

৬) টমেটো ও মোজারেলা চিজ

৬) টমেটো ও মোজারেলা চিজ

টমেটো ও মোজেরেলা চিজ খেতে যেমন টেস্টি তেমন এটা ওজনও বাড়ায় না। টমেটোয় থাকে ভিটামিন সি, পটাসিয়াম এবং লাইকোপিন। মোজেরেলা চিজে থাকে প্রোটিন, ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন বি-১২। সব উপাদানই স্বাস্থ্যের জন্য ভীষণ ভালো। এক কাপ টমেটো কুচির সঙ্গে ৬০ গ্রামের মতো চিজ মিশিয়ে খেতে পারেন।

৭) ডিম

৭) ডিম

ডিম খেতে কে না ভালোবাসে! স্ন্যাকস হিসেবে এর বিকল্প হয় না। ভালো করে সিদ্ধ করে ডিম খেলে প্রোটিন, ভিটামিন বি-১২ এবং কে-২ যেমন মিলবে তেমনি ক্যালোরি কমাতেও সাহায্য করবে।

৮) ছোলা

৮) ছোলা

ছোলা সিদ্ধ করে বা রোস্ট করে খেতে পারেন। আধা কাপ ছোলায় থাকে ১০০ ক্যালোরি, ৫ গ্রাম প্রোটিন এবং ৫ গ্রাম ফাইবার।

৯) পপকর্ন

৯) পপকর্ন

সিনেমা দেখতে দেখতে পপকর্ন খেতে সবাই পছন্দ করে। আপনি যদি ডায়েটে থাকেন তাহলে পপকর্ন খেতে পারেন। ৩ কাপ পপকর্নে থাকে ৪ গ্রাম ফাইবার, ৪ গ্রাম প্রোটিন এবং ১১০ ক্যালোরি।

English summary

Best Snacks for Weight Loss

Here are nine healthy, weight-loss-friendly snacks to add to your diet. Read on.
X