ভারতের বিভিন্ন ধর্মে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা

By Super Admin
Subscribe to Boldsky

মাসিকের ওপর ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা একটি সামাজিক নিষেধাজ্ঞা যা মহিলাদের রজঃস্রাব জনিত বিষয়|ভারতে রজস্রাবকে মহিলাদের কলঙ্ক ও সামাজিক বাধা হিসেবে গণ্য করা হয়|

এবং অধিকাংশ সমাজ ও ধর্মে, সাধারণত একটি ঋতুমতী নারীকে অশুচি বলে মানা হয়ে থাকে|

এছাড়াও পড়ুন: ভারতের আশ্চর্য্য ধর্মীয় ঐতিহ্য

বিভিন্ন ধর্ম ও সংস্কৃতির বিভিন্ন মত এই ঋতুস্রাবকে ঘিরে, কিন্তু এখনও এটি ভারতীয় সমাজের অন্যতম কুসংস্কার|

এখানে, আমরা ভারতের বিভিন্ন ধর্মে মাসিকের নিষেধাজ্ঞা সম্বন্ধে উল্লেখ করছি|

আসুন দেখি কিভাবে এই নিষেধাজ্ঞা বিভিন্ন ধর্মে পালন করা হয়|

ভারতে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা

হিন্দুধর্ম - হিন্দুধর্মের মতে, একটি ঋতুমতী নারীকে অপবিত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয় এবং কিছু নিয়ম দেওয়া হয় অনুসরণ করার জন্য| একজন হিন্দু ঋতুমতী নারীকে রান্নাঘর, পুজোর ঘর এবং মন্দিরে প্রবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয় না|

তার জোরে জোরে কথা বলা, ফুল দিয়ে সেজে ওঠা ও কোনো ব্যক্তিকে স্পর্শ করা নিষেধ| হ্যাঁ, এই ধর্মীয় আচার এখনো অনুসরণ করা হয়!

একটি ঋতুমতী নারী সমাজে নিষিদ্ধ বলে মনে করা হয়, এমনকি তার মাসিক শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে পরিবারে ফিরে আসতে অনুমতি দেওয়া হয় না|

ভারতে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা

ইসলাম - ঋতুমতী নারীকে এই সময়কালে কোন অনুষ্ঠান বা ধর্মীয় কার্যক্রম সম্পাদন থেকে দূরে রাখা হয়|

এই সময়ে যে কোন ধরনের শারীরিক সম্পর্ক ইসলাম ধর্মে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ আছে|

একটি ঋতুমতী নারীকে উৎসবের সময় উপস্থিত হতে দেওয়া হয়; তবে, সে নামাজ থেকে দূরে থাকে|

ভারতে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা

খ্রীষ্টধর্ম -অশুচিতার মতবাদে, খ্রীষ্টধর্মও ঋতুমতী নারীকে অশুচি হিসাবে বিবেচনা করা হয়|

অন্যরা মনে করেন যে, এই আইন বাতিল করা উচিত কারণ, তাকে সুস্থ করার জন্য, এক ঋতুমতী নারীকে স্পর্শ করতে যীশু নিজে অনুমতি দিয়েছিলেন|

ভারতে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা

শিখ - শিখদের মতে, একটি ঋতুমতী নারী একজন পুরুষের মতই শুদ্ধ| গুরু নানক, শিখদের প্রতিষ্ঠাতা, নারীদের ঋতুস্রাবের সময় অপবিত্র মানার ঐতিহ্যকে তিরস্কার করেছিলেন|

একটি ঋতুমতী নারীকে অপবিত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয় না, বরং তাকে প্রার্থনার পাশাপাশি সেবা করারও অনুমুতি দেওয়া হয়ে থাকে|

শিখ ধর্মে এই বার্তা দেওয়া হয় যে একটি ঋতুমতী নারী পবিত্র, এবং এই মাসিক চক্র ঈশ্বর কর্তৃক একটি প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া|

ভারতে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা

ইহুদীধর্ম - ইহুদীধর্ম মতে, যারা ঋতুমতী নারীকে স্পর্শ করবে তাদের অশুচি মানা হবে যতক্ষণ না তারা স্নান করে শুদ্ধ হবেন|

এই সময়ে শারীরিক মিলন ইহুদীধর্মে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ, এবং যে কেউ এর বিরুদ্ধে যাবে তার কঠোর শাস্তি হতে পারে|

ভারতে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা

কাশ্মীরের বিশেষ আইন - কাশ্মীরের নিজস্ব কিছু নিষেধাজ্ঞা ও বিশ্বাস আছে এই রজঃস্রাব নিয়ে| রাজ্যের আইন অনুযায়ী, একটি ঋতুমতী নারী অস্পৃশ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয় না|

বরং তাকে তার পরিবার ওই সময়ে যত্নে রাখে| কাশ্মীরিদের মতে, একজন ঋতুমতী নারীর সেবা করলে তারা ভগবানের আশীর্বাদ পেতে পারেন|

For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    English summary

    ভারতে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা |হিন্দু ধর্মে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা | ইসলাম ধর্মে মাসিকের ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা | খ্রীষ্টান ধর্মে কি ভাবে মাসিকের ওপর নিষেধাজ্ঞা পালন করা হয়

    Menstrual taboo is a social taboo primarily concerned with menstruation of a female. Menstruation is recognised as a social taboo in India, where a menstruating woman is considered to be tainted.
    Story first published: Friday, October 14, 2016, 18:17 [IST]
    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Boldsky sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Boldsky website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more