অ্যালো ভেরা জুসের মতো এমন একটা বিতকুটে জিনিস কেন খেতে বলছেন ডাক্তারেরা?

Subscribe to Boldsky

"চিকিৎসকেদের কাজই হল উপদেশ দেওয়া। তাই বলে কী এদের সব কথা শুনতে হবে!" এমনটা ভাবলে কিন্তু ভুল করবেন! কেন এমন কথা বলছি তাই ভাবছেন তো? আসলে বন্ধু একথা ঠিক যে আজকাল অনেক চিকিৎসকই ওষুধ কোম্পানির সিইও-এর স্বার্থ রক্ষার্তে নানা উপদেশ দিয়ে থাকেন। কিন্তু এমনও অনেক ডাক্তার রয়েছেন যাদের কাছে আজও রোগীর ভালটাই শেষ কথা। আর অ্যালো ভেরার মতো প্রকৃতিক উপাদানকে নিয়ে ডাক্তারদের রসিকতা করার প্রয়োজনও যে নেই, সে কথা তো বলাই বাহুল্য! তাই তো বলি বন্ধু এত দূষণ এবং ঝুট-ঝামেলার মাঝেও যদি শরীর বাবাজিকে চাঙ্গা রাখতে হয়, তাহলে ডাক্তারের কথা মেনে অ্যালো ভেরার রস খাওয়া শুরু করতে দেরি করবেন না যেন!

প্রসঙ্গত, বেশ কিছু গবেষণায় একথা প্রমাণ হয়ে গেছে যে ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে অ্যালো ভেরার যেমন কোনও বিকল্প নেই, তেমনি এই প্রাকৃতিক উপাদানটিকে কাজে লাগিয়ে আরও অনেক রোগকেই দূরে রাখা সম্ভব। যেমন ধরুন...

১. হার্টের ক্ষমতা বাড়ে:

১. হার্টের ক্ষমতা বাড়ে:

বেশ কিছু স্টাডিতে দেখা গেছে অ্যালো ভেরা জুস খাওয়া মাত্র সারা শরীরে অক্সিজেন সমৃদ্ধ রক্তের প্রভাব বেড়ে যায়, যে কারণে শরীরের প্রতিটি অঙ্গের পাশাপাশি হার্টের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পেতেও সময় লাগে না। সেই সঙ্গে রক্তে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রাও হ্রাস পায়। ফলে কোনও ধরনের হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা যেমন কমে, তেমনি হঠাৎ করে হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাও দূর হয়।

২. ক্ষতের চিকিৎসায় কাজে আসে:

২. ক্ষতের চিকিৎসায় কাজে আসে:

রোজের ডায়েটে এই প্রকৃতিক উপাদানটিকে জায়গা করে দিলে দেখবেন কখনও শরীরে কোনও চোট-আঘাত লাগলে সেই ক্ষত সারতে সময় লাগবে না। কারণ অ্যালো ভেরা জুসে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান শরীরে প্রবেশ করা মাত্র এমন খেল দেখায় যে, যে কোনও ধরনের ক্ষত সারতে সময় লাগে না। প্রসঙ্গত, ক্ষতের উপরে অ্যালো ভেরা জেল লাগালেও কিন্তু সমান উপকার পাওয়া যায়।

৩. নানাবিধ হরমোনের ক্ষরণ ঠিক মতো হয়:

৩. নানাবিধ হরমোনের ক্ষরণ ঠিক মতো হয়:

একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত অ্যালো ভেরা জেল খাওয়া শুরু করলে দেহের অন্দরে এমন কিছু পরিবর্তন হতে শুরু করে যে, যার প্রভাবে প্রয়োজনীয় হরমোনের ক্ষরণ ঠিক মতো হতে শুরু করে। ফলে হরমেনাল ইমব্যালেন্স হওয়ার মতো সমস্যা ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না। প্রসঙ্গত, প্যানক্রিয়াস সংক্রান্ত নানা রোগের চিকিৎসাতেও এই প্রকৃতিক উপাদানটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

৪. পুষ্টির ঘাটতি দূর হয়:

৪. পুষ্টির ঘাটতি দূর হয়:

বেশ কিছু কেস স্টাডিতে দেখা গেছে নিয়মিত এই প্রকৃতিক উপদানটি খাওয়া শুরু করলে শরীরের প্রয়োজনীয় ভিটামিন এবং মিনারেলের ঘাটতি দূর হয়। সেই সঙ্গে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ঘাটতিও দূর হতে থাকে। প্রসঙ্গত, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হল সেই উপাদান, যা আমাদের শরীরকে রোগ মুক্ত রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। প্রসঙ্গত, অ্যালো ভেরা জেলকে যদি তুলসি, করলা অথবা আমলকির রসের সঙ্গে মিশিয়ে খেতে পারেন, তাহলে আরও বেশি উপকার মেলে। সেক্ষেত্রে ভিতর এবং বাইরে থেকে শরীরের ক্ষমতা তো বাড়েই, সেই সঙ্গে ছোট-বড় কোনও রোগই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না।

৫. শরীর থেকে টক্সিক উপাদানেরা বেরিয়ে যায়:

৫. শরীর থেকে টক্সিক উপাদানেরা বেরিয়ে যায়:

প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে এই রসটা যদি খেতে পারেন, তাহলে শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টর পরিমাণ এত বৃদ্ধি পায় যে দেহের প্রতিটি কোণায় জমতে থাকা টক্সিক উপাদানেরা বেরিয়ে যেতে শুরু করে। প্রসঙ্গত, এই সব টক্সিক উপাদানদের মাত্রা যদি বৃদ্ধি পেতে থাকে, তাহলে শরীরের প্রতিটি অঙ্গের কর্মক্ষমতা ধীরে ধীরে কমতে শুরু করে। ফলে নানাবিধ রোগ ঘারে চেপে বসতে সময়ই নেয় না। তাই বিষয়ে সাবধান থাকাটা জরুরি!

৬. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটে:

৬. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উন্নতি ঘটে:

সুস্থভাবে দীর্ঘদিন যদি বাঁচতে চান তাহলে অ্যালো ভেরা রস খেতে ভুলবেন না যেন! কারণ নিয়মিত এই প্রকৃতিক উপাদানটি গ্রহণ করলে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এতটা শক্তিশালী হয়ে ওঠে যে সর্দি-কাশি থেকে শুরু করে ছোট-বড় কোনও রোগই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না। সেই সঙ্গে সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমে।

৭. হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটে:

৭. হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটে:

শীত মানেই পিকনিক, সেই সঙ্গে এদিক-সেদিকের খাবার খাওয়া তো রোজের নিয়ম হয়ে দাঁড়ায়েছে। আর এমনটা করতে গিয়ে কি পেটের হাল বেজায় বেহাল হয়ে পরেছে? তাহলে তো বন্ধু আজ থেকেই অ্যালো ভেরা জুস খাওয়া শুরু করতে হবে। কারণ এই প্রকৃতিক উপাদানটি শরীরে প্রবেশ করার পর পাচক রসের ক্ষরণ এতটা বাড়িয়ে দেয় যে বদ-হজমের মতো রোগ ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না। সেই সঙ্গে গ্যাস-অম্বল, অ্যাসিডিটি এবং কনস্টিপেশনের মতো সমস্যাও কমতে শুরু করে। এবার বুঝেছেন তো খাদ্যরসিকদের জন্য অ্যালো ভেরা রস খাওয়ার প্রয়োজন কতটা!

৮. লোহিত রক্ত কণিকার উৎপাদন বেড়ে যায়:

৮. লোহিত রক্ত কণিকার উৎপাদন বেড়ে যায়:

সরকার প্রকাশিত পরিসংখ্যানের দিকে নজর ফেরালে জানতে পারবেন আমাদের দেশের সিংহভাগ মহিলা নাগরিকই অ্যানিমিয়ায় ভুগছেন। এমন পরিস্থিতিতে অ্যালো ভেরা প্লান্টের রস খাওয়ার প্রয়োজন যে বেড়েছে, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। কারণ এই প্রকৃতিক উপাদানটিতে উপস্থিত একাধিক উপকারি উপাদান দেহের অন্দরে প্রবেশ করার পর এমন খেল দেখায় যে লহিত রক্ত কণিকার উৎপাদন বাড়তে শুরু করে। ফলে অ্যানিমিয়ার প্রকোপ কমতে সময়ই লাগে না।

For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    Read more about: শরীর রোগ
    English summary

    Aloe Vera Juice: Does It Actually Have Health Benefits?

    Cold presses aloe vera juice is an extremely popular beverage, and it has become even more of a phenomenon in recent years, as more studies are done on the active ingredients, nutrients, and health potential of this plant juice. Aloe vera is a species of plants from the Aloe genus that grows well in tropical regions. Aloe vera leaves are where the majority of the active ingredients are located, so they are widely harvested wherever this plant grows. For thousands of years, aloe vera gel has been used in medical practices, and the extract of this plant is extremely potent. The most important components of the leaves or the powder of this plant are saponins, amino acids, beta-carotene, vitamin C, vitamin B, vitamin E, lignins, and other minerals and enzymes.
    Story first published: Wednesday, September 12, 2018, 17:12 [IST]
    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Boldsky sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Boldsky website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more