আপনার ঘটে যে বুদ্ধি আছে তা জানবেন কিভাবে?

Written By:
Subscribe to Boldsky

ঘটে বুদ্ধি মানে! আরে মশাই আপনি কি বুদ্ধিমান! এটা বোঝাতে আম বাঙালি তো এইভাবেই বলে থাকে, তাই না! এই সব ছাড়ুন, আগে বলুন তো আপনি বুদ্ধিমান কিনা?

এ কেমন প্রশ্ন মশাই! নিজের বুদ্ধি নিজে মাপার কোনও মাপকাঠি আছে নাকি? আছে তো! আরে সেই কারণেই তো এই প্রবন্ধ লেখার সিদ্ধান্ত নেওয়া। আসলে বুদ্ধির ধার, কার কতটা হবে, তা অনেকাংশেই নির্ভর করে মস্তিষ্কের বিশেষ একটি অংশ কতটা অ্যাকটিভলি কাজ করছে তার উপর। আর সব থেকে মজার বিষয় হল, আপনার মস্তিষ্কের সেই অংশটি কর্মচঞ্চল কিনা তা জানার বেশ কিছু সহজ উপায় আছে, যা বিশ্লেষণ করার মধ্যে দিয়ে কে কতটা বুদ্ধিমান সে সম্পর্কে সহজেই জেনে নেওয়া সম্ভব!

কে কতটা বুদ্ধিমান সে সম্পর্কে জানতে বিজ্ঞানীরা গত কয়েকশো বছর ধরে চেষ্টা চালাচ্ছিলেন। কিন্তু সেভাবে কোনও মাপকাঠি তৈরি করতে পারেননি। সম্প্রতি একদল বিজ্ঞানী এই বিষয়ে গবেষণা চালাতে গিয়ে জানতে পারেন "আই কিউ" বিচার করার মধ্যে দিয়ে এ বিষয়ে ধারণা করা সম্ভব। এর পর পরই শুরু হয় এই নিয়ে আরও কিছু গবেষণা। আরে এই পরীক্ষাগুলি করতে গিয়েই গবেষকরা লক্ষ করেন, যারা বুদ্ধিমান, তাদের কতগুলি বিশেষ গুণ থাকে, যা দেখে তারা যে বাকি সবার থেকে কিছুটা হলেও আলাদ, সে সম্পর্কে ধরণা করা সম্ভব হয়। সাধারণত কেউ যে বুদ্ধিমান তা যে যে লক্ষণগুলি দেখে বোঝা সম্ভব, সেগুলি হল...

১. একের অধিক ভাষা সম্পর্কে জ্ঞান থাকা:

১. একের অধিক ভাষা সম্পর্কে জ্ঞান থাকা:

একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে যারা একের অধিক ভাষা সম্পর্কে জ্ঞান রাখেন, তাদের মস্তিষ্ক এত মাত্রায় ডেভলপড হয় যে বুদ্ধির দিক থেকেও এরা বাকিদের অনেকটাই পিছনে ফেলে দেন। আসলে যে কোনও ভাষা শেখার সময় আমাদের মস্তিষ্ক এতটা অ্যাকটিভ হয়ে যায় যে স্বাভাবিকভাবেই বুদ্ধি বাড়তে শুরু করে। তাই এবার থেকে যখনই জানবে কেউ তার মাতৃভাষা ছাড়াও আরও কিছু ভাষায় কথা বলতে পারেন, তাহলে বুঝে যাবেন সে বেজায় বুদ্ধিমান।

২. আই কিউ যদি ১০০-এর বেশ হয়:

২. আই কিউ যদি ১০০-এর বেশ হয়:

যেমনটা আগেও আলোচনা করা হয়েছে যে আপনি কতটা বুদ্ধিমান, তা অনেকাংশেই নির্ভর করে আপনার আই কিউ-এর উপর। তাই নিদের বুদ্ধির ধার সম্পর্কে যদি জানতে চান, তাহলে সময় করে একবার আই কিউ টেস্ট করিয়ে নেবেন। যদি দেখেন ১০০-এর বেশি নম্বর পেয়েছেন, তাহলে জানবেন আপনি বুদ্ধির দিক থেকে বাকিদের থেকে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন।

৩. আপনি কি ভাই-বোনেদের মধ্যে সবথেকে বড়?

৩. আপনি কি ভাই-বোনেদের মধ্যে সবথেকে বড়?

বিজ্ঞানীরা খেয়াল করে দেখেছেন যারা বাড়ির বড় ছেলে বা মেয়ে হন, তাদের বুদ্ধি বা আই কিউ লেভেল অনেকের থেকেই বেশি হয়। কিন্তু কেন এমনটা হয়, সেই নিয়ে যদিও এখনও স্পষ্ট ধরণা করে উঠতে পারেননি বিজ্ঞানীরা। তবে আশা করা যেতে পারে আগামী কয়েক বছরে এই উত্তরও পাওয়া সম্ভব হবে।

৪. আপনি কি বিড়াল ভালবাসেন?

৪. আপনি কি বিড়াল ভালবাসেন?

শুনতে আজব লাগলেও একথা একাধিক গবেষণাতে প্রমাণিত হয়ে গেছে যে যারা কুকুরের থেকে বিড়াল বেশি পছন্দ করেন, তাদের আই কিউ সাধারণ মানুষদের তুলনায় বেশি হয়। প্রসঙ্গত, এই বিষয়ে স্পষ্ট ধারা করতে করতে একদল বিজ্ঞানী প্রায় ৬০০ জন ছাত্রের আই কিউ পরীক্ষা করেছিলেন। তাতে দেখা গেছে যারা বিড়াল ভালবাসেন তাদের আই কিউ রেজাল্ট বাকিদের থেকে বেশ ভাল। শুধু তাই নয়, বিড়াল প্রিয় মানুষদের পার্সোনালিটিও নাকি বাকিদের থেকে আলাদা হয়, এমনটাই ধরণা গবেষকদের।

৫. মাত্রাতিরিক্ত দুশ্চিন্তা করা:

৫. মাত্রাতিরিক্ত দুশ্চিন্তা করা:

একাধিক গবেষণাতে দেখা গেছে যারা একটু বেশি মাত্রায় চিন্তা করেন, তাদের ব্রেন অ্যাকটিভি এতটা বেশি থাকে যে বুদ্ধির দিক থেকে এরা অনেককে পিছনে ফেলে দেন। আসলে কোনও বিষয নিয়ে চিন্তা করার সময় আমরা একই সময় নানা বিষয় নিয়ে ভাবতে থাকি। ফলে মস্তিষ্কের কর্মক্ষমতা মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পায়। তাই দুশ্চিন্তা সব সময়ই যে শরীরের পক্ষে ক্ষতিকারক, এমনটা ভেবে নেওয়ার কোনও কারণ নেই। তবে একথাও মনে রাখতে হবে যে বেশি মাত্রায় টেনশন করলে রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার মতো সমস্যাও দেখা দিতে পারে। তাই এ বিষয়ে সাবধান থাকাটা জরুরি।

৬. আপনি কি মজা করতে খুব ভালবাসেন?

৬. আপনি কি মজা করতে খুব ভালবাসেন?

বেশ কিছু গবেষণা চলাকালীন বিশেষজ্ঞরা লক্ষ করেছিলেন, যারা খুব মজাদার হন, সবার পিছনে লাগতে খুব ভালবাসেন, তাদের আই কিউ লেভেল খুব বেশি হয়। ফলে বুদ্ধিও যে বাকিদের থেকে একটু বেশি হয়, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি হওয়া একটি গবেষণায দেখা গেছে কীভাবে কেউ নিজেকে বাকিদের সামনে আকর্ষণীয় করে তোলে, তা দেখে সেই ব্যক্তির বুদ্ধি সম্পর্কে অনেকংশেই ধরণা করা সম্ভব হয়। আর এই স্টাডি অনুসারে যারা নিজেকে মজাদার ভঙ্গিতে অন্য়ের সামনে তুলে ধরেন, তাদের আকষর্ণীয়তা অন্য়দের কাছে অনেকাংশেই বেশি হয়। ফলে এদের বুদ্ধিও হয় অনেক বেশি।

৭. আসলতা আশীর্বাদ না অভিশাপ?

৭. আসলতা আশীর্বাদ না অভিশাপ?

ফেলুদার সঙ্গে যখন প্রথম পরিচয় হয়েছিল, তখন তোপসে একটা কথা বলেছিল যে, আপাত দৃষ্টিতে ফেলুদা বেজায় আলস। কিন্তু নিজের পছন্দের কাজ যদি পয়ে যায়, তাহলে ওর মতো কর্মঠ আর কেউ নেই। শুধু কী তাই! ফেলু মিত্তিরের বুদ্ধির ধার সম্পর্কে তো সবারই জানা আছে। তাই আলসতা যে বেজায় খারপ, এমনটা ভেবে নেওয়ার কোনও কারণ নেই। বরং একাধিক গবেশষণায় একথা প্রমাণিত হয়ে গেছে যে যারা ঘন্টার পর ঘন্টা নিজের মধ্যে থাকতে খুব ভালবাসেন, তারা বেজায় বুদ্ধিমান হন।

Read more about: রোগ, শরীর
English summary
Einstein one said “The true sign of intelligence is not knowledge, but imagination.” Socrates once said “I know that I am intelligent, because I know that I know nothing.” For centuries psychologists and philosophers have been trying to pinpoint what signs identify intelligence.
Story first published: Thursday, December 7, 2017, 10:56 [IST]
Please Wait while comments are loading...