বেড টি খেলে কিন্তু ডেথ বেডে যেতে হতে পারে!

Posted By:
Subscribe to Boldsky

যেই না ঘুম ভাঙল অমনি ধোঁয়া ওঠা চায়ের পেয়ালায় চুমুক দেওয়ার নেশা বাঙালির জন্মগত অভ্যাস। অনেকেরই মেজাজ নাকি ঠিক তালে বাজে না, যতক্ষণ না গরম চায়ে চুমুক দেয়। কিন্তু বেড টি যে কোনও দিক থেকেই ভাল নয়! মানে?

গবেষণা বলছে, ঘুম ভাঙা মাত্র চা খেলে শরীর এবং দাঁতের প্রায় বারোটা বেজে যায়। শুধু তাই নয়, সারা রাত ধরে দাঁতের ফাঁকে ফাঁকে জমে যাকা ময়লা এবং ব্যাকটেরিয়া চায়ের স্রোতে ভেসে পেটে চলে যায়। ফলে নানাবিধ জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়। সেই কারণেই তো মুখ না ধুয়ে কিছু খেতে বারণ করেন চিকিৎসকেরা। আর যদি এই নিয়মটি না মানেন, তাহলে হতে পারে এই ৬ টি বিপদ। তাই বেড টি থেকে সাবধান!

এক্ষেত্রে যে যে সমস্যাগুলি হওয়ার আশঙ্কা থাকে। সেগুলি হল...

১. স্টমাকে অ্যাসিডের মাত্রা বাড়তে শুরু করে:

১. স্টমাকে অ্যাসিডের মাত্রা বাড়তে শুরু করে:

রাতের বেলা ঘুমিয়ে পরার পর থেকেই হাজারো ব্যাকটেরিয়া মুখ গহ্বরে জমতে শুরু করে। সেই কারণেই তো সকালে উঠে মুখে এত গন্ধ হয়। এখন দাঁত না মেজেই যদি চা বা কফি পান করা হয়, তাহলে এই সব ব্যাকটেরিয়া খাদ্য নালি হয়ে এসে পৌঁছায় স্টমাকে। ফলে সেখানে অ্যাসিডের মাত্রা এতটাই বেড়ে যায় যা নানাবিধ সমস্যা মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে। তাই যারা গ্যাস-অম্বল বা বদ হজমের সমস্যায় ভোগেন, তারা ভুলেও দাঁত না মেজে চা বা কফি খাবেন না।

২. হজম ক্ষমতা কমে যেতে শুরু করে:

২. হজম ক্ষমতা কমে যেতে শুরু করে:

খারাপ ব্যাকটেরিয়ার দাপটে স্টমাকে উপস্থিত ভাল ব্যাকটেরিয়ারদের সংখ্যা কমে যেতে শুরু করে। ফলে ধীরে ধীরে হজম ক্ষমতা কমে যায়। সেই সঙ্গে অ্যাসিড-অ্যালকেলাইন ব্যালেন্স বিগড়ে গিয়ে নানাবিধ পেটের রোগ শরীরে এসে বাসা বাঁধে।

৩. সংক্রমণের আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়:

৩. সংক্রমণের আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়:

সকাল সকাল খালি পেটে চা বা কফি পানের অভ্যাস থাকলে পেটের অন্দরে, বিশেষত পাকস্থলীতে মারাত্মক প্রদাহ সৃষ্টি হয়, যা স্টামক ইনফেকশনের আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। সেই সঙ্গে পেপটিক আলসারের মতো রোগ আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাও বৃদ্ধি পায়।

৪. শরীরে আয়রনের মাত্রা কমে যেতে শুরু করে:

৪. শরীরে আয়রনের মাত্রা কমে যেতে শুরু করে:

একাধিক গবেষণায় একথা প্রমাণিত হয়ে গেছে যে দীর্ঘ দিন ধরে বেড টি খেয়ে গলে শরীরের পক্ষে ঠিক মতো আয়রন শোষণ করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। ফলে অ্যানিমিয়ার মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। প্রসঙ্গত, তৃতীয় বিশ্বের মহিলাদের প্রায় সিংহভাগই অ্যানিমিক হন। সেই কারণেই তো চিকিৎসকেরা পৃথিবীর এই প্রান্তের অধিবাসীদের বেড টি থেকে যতটা সম্ভব দূরে থাকার পরামর্শ দেন।

৫. শরীরে টক্সিনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়:

৫. শরীরে টক্সিনের মাত্রা বৃদ্ধি পায়:

সকালে ঘুম থেকে উঠে প্রথমেই এক গ্লাস জল খাওয়া উচিত, যাতে শরীরে জমে থাকা ক্ষতিকর টক্সিক উপাদান বেরিয়ে যেতে পারে। কিন্তু এমনটা না করে যদি এক পেয়লা চা পান করেন, তাহেল টক্সিক উপাদানের মাত্রা কমে তো নাই, উল্টে আরও বেড়ে যায়। ফলে শরীরের একাধিক ভাইটাল অ্যারগান, যেমন- লিভার, কিডনি এবং ফুসফুসের মারাত্মক ক্ষতি হয়।

৬. দাঁতের স্বাস্থ্য খারাপ হয়ে যায়:

৬. দাঁতের স্বাস্থ্য খারাপ হয়ে যায়:

দাঁত না মেজেই চা বা কফি খেলে মুখ গহ্বরের অন্দরে অ্যাসিডের মাত্রা বেড়ে যায়। ফলে দাঁতের উপরের আবরণ বা এনামেল নষ্ট হয়ে যেতে শুরু করে। আর এমনটা হতে থাকলে এক সময়ে গিয়ে দাঁতের ক্ষয় আর আটকানো যায় না। শুধু তাই নয়, বেশ কিছু কেস স্টাডি করে দেখা গেছে এমন অভ্যাসের কারণে জিনজিভাইটিস সহ একাধিক গাম ডিজিজ হওয়ার আশঙ্কাও বৃদ্ধি পায়। তাই দাঁতকে দীর্ঘদিন সুস্থ রাখতে দয়া করে বেড টি পান বন্ধ করুন।

English summary

বেড টি খেলে কিন্তু ডেথ বেডে যেতে হতে পারে!

Many of us are habituated to have bed-tea as soon as we wake up. However, this isn’t an ideal way to start your day, both for your body and your teeth. Your oral cavity and hygiene contribute a lot towards your health and overall well-being. So, it is imperative that you brush your teeth and clean your mouth, first thing in the morning; before you decide to have any beverage, especially tea or coffee. Why, you ask? Well, here are 6 reasons its best you avoid bed-tea.
Story first published: Saturday, June 17, 2017, 12:08 [IST]
We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Boldsky sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Boldsky website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more