প্রতিদিন সকাল সকাল খালি পেটে একটা করে কলা খাওয়া উচিত কেন জানা আছে কি?

Subscribe to Boldsky

বেশ কিছু ডাক্তারেরা মনে করেন খালি পেটে ফল খাওয়া নাকি উচিত নয়। কিন্তু কলার ক্ষেত্রে এই উপদেশটি মানলে যে ভুল করবেন সে বিষয়ে কিন্তু কোনও সন্দেহ নেই! কারণ একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে নানা পুষ্টিকর উপাদানে ঠাসা এই ফলটি প্রতিদিন সকালে একটা করে খাওয়া শুরু করলে শরীরের অন্দরে এমন কিছু পরিবর্তন হতে শুরু করে যে মন একেবারে চাঙ্গা হয়ে ওঠে। সেই সঙ্গে ক্যান্সারের মতো মারণ রোগ দূরে পালায়, কিডনি চাঙ্গা হয়ে ওঠে, নানাবিধ হাড়ের রোগ সব দূরে থাকে, দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটে এবং রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।

তবে এখানেই শেষ নয়, কলায় উপস্থিত প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার,ওমেগা ত্রি এবং ওমেগা ৬ ফ্যাটি অ্যাসিড আরও নানাভাবে শরীরের উপকারে লেগে থাকে। যেমন ধরুন...

১. স্ট্রেস এবং মানসিক অবসাদের প্রকোপ কমে:

১. স্ট্রেস এবং মানসিক অবসাদের প্রকোপ কমে:

বেশ কিছু গবেষণায দেখা গেছে রোজের ডায়েটে কলাকে জায়গা করে দিলে শরীরে ট্রাইপটোফিন নামক একটি উপাদানের মাত্রা বৃদ্ধি পেতে শুরু করে, যার প্রভাবে ফিল গুড হরমোনের ক্ষরণ এত মাত্রায় বেড়ে যায় যে স্ট্রেস লেভেল তো কমেই, সেই সঙ্গে মানসিক অবসাদের প্রকোপ কমতেও সময় লাগে না। তাই তো বলি বন্ধু আজকের যুবসমাজের সিংহভাগই যখন স্ট্রেস নামক সমস্যার শিকার, তখন নিয়মিত কলা খাওয়া প্রয়োজন যে বেড়েছে, সে বিষয়ে কিন্তু কোনও সন্দেহ নেই!

২. শরীর বিষ মুক্ত হয়:

২. শরীর বিষ মুক্ত হয়:

শুনতে আজব লাগলেও একথা ঠিক যে শরীরের ইতি-উতি উপস্থিত ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানদের বের করে দেওয়ার মধ্যে দিয়ে দেহের প্রতিটি অঙ্গকে চাঙ্গা রাখতে কলার কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। আসলে এই ফলটির অন্দরে উপস্থিত প্রেকটিন নামক একটি উপাদান, শরীরের প্রবেশ করা মাত্র ক্ষতিকর উপাদানদের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করে। ফলে রোগমুক্ত শরীরের অধিকারী হয়ে ওঠার স্বপ্ন পূরণ হতে সময় লাগে না।

৩. ওজন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে:

৩. ওজন নিয়ন্ত্রণে চলে আসে:

কলার শরীরে পটাশিয়াম ছাড়াও রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ফাইবার, যা অনেকক্ষণ পেট ভরিয়ে রাখে। ফলে খাওয়ার পরিমাণ কমতে শুরু করে। আর কম খেলে যে ওজনও কমে, সে কথা কার না আজানা বলুন! প্রসঙ্গত, ফাইবার কনস্টিপেশনের মতো রোগ সারাতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

৪. পুষ্টির ঘাটতি দূর হয়:

৪. পুষ্টির ঘাটতি দূর হয়:

শরীরের সচলতা বজায় রাখতে প্রতিদিন নির্দিষ্ট মাত্রায় ভিটামিন এবং মিনারেলের প্রয়োজন পরে শরীরের। আর এইসব উপাদানের যোগান শরীর পায় খাবারের মাধ্যমে। সমস্যাটা হল আজকের প্রজন্ম এতটাই ব্যস্ত যে তাদের হাতে ঠিক মতো খাওয়া-দাওয়া করার সময় নেই। ফলে যা হওয়ার তাই হয়, পুষ্টির ঘাটতি হওয়ার কারণে নানাবিধ রোগ এসে বাসা বাঁধে শরীরে। এমন পরিস্থিতি কলা কিন্তু দারুন কাজে আসতে পারে। কিভাবে? এই ফলটির শরীরে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন এবং মিনারেল। সেই সঙ্গে রয়েছে পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম, আয়রন এবং ফলেটের মতো উপাদান, যা শরীরকে চাঙ্গা রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই এবার থেকে ঠিক সময় খাবার খাওয়া সুযোগ না পেলে ২-৪ টে কলা খেয়ে নিতে ভুলবেন না যেন!

৫. ডায়াবেটিসের মতো মারণ রোগ ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না:

৫. ডায়াবেটিসের মতো মারণ রোগ ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না:

কলা খাওয়া মাত্র শরীরে কম-বেশি ৩ গ্রামের মতো ডায়াটারি ফাইবারের প্রবেশ ঘটে। যার প্রভাবে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণের বাইরে যাওয়ার সুযোগই পায় না। এই কারণেই তো টাইপ ১ এবং ২, দু ধরনের ডায়াবেটিস রোগীদেরই এই ফলটি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে। আর যদি এই মারণ রোগ থেকে দূরে রাখতে হয়, তাহলে কিন্তু নিয়মিত এই কলা খাওয়া মাস্ট!

৬. শরীর চাঙ্গা হয়ে ওঠে:

৬. শরীর চাঙ্গা হয়ে ওঠে:

বছরের শেষেও অফিসে এমন কাজের চাপ যে ক্লান্তি ঘরির কাঁটার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে বাড়তে মাত্রা ছাড়িয়েছে? ফিকার নয়! এমন পরিস্থিতিতে একটা কলা খেয়ে নেবেন সব সময়। তাহলেই দেখবেন অনেক চাঙ্গা লাগবে। কারণ ক্লান্তি দূর করতে কলার কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। এই কারণেই তো অ্যাথেলিটদের রোজের ডেয়েটে আর কিছু থাকুক না থাকুক কলা থাকেই!

৭. অ্যাস্থেমার প্রকোপ দূর হয়:

৭. অ্যাস্থেমার প্রকোপ দূর হয়:

বেশ কিছু স্টাডিতে দেখা গেছে নিয়মিত একটা করে কলা খাওয়া শুরু করলে শরীরে এমন কিছু উপাদানের প্রবেশ ঘটে যে অ্যাস্থেমার প্রকোপ প্রায় ৩৪ শতাংশ কমে যায়। তাই তো বলি বন্ধু, এমন রোগের খপ্পর থেকে যদি বেরিয়ে আসতে চান, তাহলে রোজের ডায়েটে এই ফলটিকে অন্তর্ভুক্ত করতে ভুলবেন না যেন!

৮. ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়:

৮. ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়:

কলা খাওয়ার পর যদি কলার খোসা মুখে লাগাতে পারেন, তাহলে একাদিক যেমন ত্বকের রোগের প্রকোপ কমে, তেমনি স্কিনের হারিয়ে যাওয়া ঔজ্জ্বল্য ফিরে আসে। আসলে কলার খোসার অন্দরে থাকা একাধিক উপাকারি উপাদান এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। প্রসঙ্গত, কলার খোসায় থাকা উপকারি ফ্যাটি অ্যাসিডও এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

৯.অ্যানিমিয়ার মতো রোগের প্রকোপ কমে:

৯.অ্যানিমিয়ার মতো রোগের প্রকোপ কমে:

কলায় রয়েছে বিপুল পরিমাণে আয়রন, যা শরীরে লহিত রক্ত কণিকার মাত্রা বৃদ্ধি করার মধ্যে দিয়ে অ্যানিমিয়ার প্রকোপ কমাতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই যারা এমন রোগে ভুগছেন, তারা আয়রন ট্য়াবলেটের পাশাপাশি যদি নিয়ম করে কলা খেতে পারেন, তাহলে কিন্তু দারুন উপকার মিলতে পারে।

১০. হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটে:

১০. হজম ক্ষমতার উন্নতি ঘটে:

আয়ুর্বেদ শাস্ত্র মতে কলার অন্দরে এমন কিছু উপাদান রয়েছে, যা পাচক রসের ক্ষরণ বাড়িয়ে দেয়। ফলে স্বাভাবিকভাবেই হজম প্রক্রিয়ার উন্নতি ঘটে। তাই পুজোর পর থেকে যদি পেটটা ঠিক না যায়, তাহলে আজ থেকেই নিয়মিত কলা খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন উপকার মিলবে।

১১. ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে চলে আসে:

১১. ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে চলে আসে:

কলায় উপস্থিত পটাশিয়াম শরীরে নুনের ভারসাম্য বজায় রাখতে বিশেষ ভূমিকা নেয়। ফলে নিয়মিত কলা খেলে দেহে নুনের মাত্রা বেড়ে যাওয়ার সুযোগ পায় না। ফলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার কোনও আশঙ্কাই থাকে না।

For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    Read more about: শরীর রোগ
    English summary

    11 Powerful Reasons to Eat Bananas During Breakfast

    You'll never look at the humble banana the same way again after discovering the many health benefits and reasons to add them to your diet.They can help to combat depression, make you smarter, cure hangovers, relieve morning sickness, protect against kidney cancer, diabetes, osteoporosis, and blindness. Plus they can even cure the itch of a mosquito bite and put a great shine on your shoes.Here are 11 reasons to eat bananas you might have never considered before.
    Story first published: Saturday, October 6, 2018, 13:25 [IST]
    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Boldsky sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Boldsky website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more