প্রতি বৃহষ্পতিবার কলা গাছের পুজো করলে কী কী উপকার পাওয়া যায় জানা আছে?

Written By:
Subscribe to Boldsky

হিন্দু শাস্ত্রে কলা গাছের বেশ কদর রয়েছে। তাই তো যে কোনও শুভ কাজে এর উপস্থিতি মাস্ট! কিন্তু একটা বিষয় সম্পর্কে হয়তো অনেকেই জানেন না হয়তো। কী বিষয়? শাস্ত্র মতে প্রতি বৃহষ্পতিবার যদি কলা গাছের পুজো করা যায়, তাহলে নানাবিধ উপকার মেলে। বিশেষত অপঘাতে মৃত্যু হওয়ার আশঙ্কা যায় কমে। শুধু তাই নয়, এমনটা করলে লর্ড বৃহষ্পতির আশীর্বাদ লাভ করাও সম্ভব হয়। আর যেমনটা আপনাদের জানা আছে যে ভগবান বৃহষ্পতি হলেন সমৃদ্ধির প্রতীক। তাই তো একবার দেবের নেক দৃষ্টি কারও উপর পরলে জীবন বদলে যেতে সময় লাগে না। শুধু তাই নয়, মেলে আরও অনেক উপকার। যেমন ধরুন...

১. কলা গাছ হল গুরুদেব:

১. কলা গাছ হল গুরুদেব:

হিন্দু শাস্ত্রের উপর লেখা একাধিক প্রাচীন গ্রন্থ অনুসারে কলা গাছ হল স্বয়ং দেবগুরু বৃহষ্পতি। তাই তো বৃহষ্পতিবার কলা গাছের পুজো করলে দেবের আশীর্বাদে গৃহস্থের অন্দরে শুভ শক্তির ক্ষমতা বাড়তে শুরু করে। সেই সঙ্গে অর্থনৈতিক উন্নতির পথও প্রশস্ত হয়। শুধু তাই নয়, প্রতি বৃহষ্পতিবার কলা গাছের আরাধনা করলে কর্মক্ষেত্রে এবং সামাজিক জীবনে সম্মান বৃদ্ধির সম্ভাবনাও যায় বাড়ে।

২. গুরুর প্রবেশ ঘটে:

২. গুরুর প্রবেশ ঘটে:

এমনটা বিশ্বাস করা হয় যে কারও বাড়িতে যদি লর্ড বৃহষ্পতির আগমণ ঘটে, তাহলে তাঁর জীবনের ছবিটাই বদলে যায়। শুধু তাই নয়, কোনও ধরনের খারাপ ঘটনা ঘটার আশঙ্কা যেমন কমে, তেমনি খারাপ দৃষ্টির প্রভাবও কম পরে। এই কারণেই তো অনেকে ভগবান বৃহষ্পতিকে সন্তুষ্ট করতে নানা ধরনের পাথর পরে থাকেন। এখন প্রশ্ন হল, যাদের পাথর কেনার ক্ষমতা নেই তারা কী করবেন? সেক্ষেত্রে কলা গাছের মূল ছোট করে কেটে নিয়ে যদি সঙ্গে রাখতে পারেন, তাহলে লর্ড বৃহষ্পতির আশীর্বাদ মেলে। শুধু তাই নয়, গৃহস্থে প্রবেশ ঘটে গুরুর। প্রসঙ্গত, বাড়ির মূল ফটতে কলা গাছ রাখলেও সমান উপকার মেলে। তাই তো বলি বন্ধু দেবের আশীর্বাদে লাভ করতে যদি চান, তাহলে এই নিয়মগুলি মেনে চলতে ভুলবেন না যেন!

৪. ভগবান বিষ্ণুর আশীর্বাদ মেলে:

৪. ভগবান বিষ্ণুর আশীর্বাদ মেলে:

কলা গাছ হল ভগবান বিষ্ণুর প্রতীক। তাই তো বাড়িতে কলা গাছ পুঁতলে ভগবান বিষ্ণু কোনও দিন সেই গৃহস্থ ছেড়ে যান না। ফলে পরিবারের প্রতিটি সদস্যের কর্মক্ষেত্রে চরম উন্নতি লাভ করার সম্ভাবনা যায় বেড়ে। সেই সঙ্গে লর্ড বিষ্ণুর আশীর্বাদে পরিবারে সুখ এবং সমৃদ্ধির ছোঁয়া লাগে। ফলে জীবন সুন্দর এবং আনন্দে ভরে উঠতে সময় লাগে না। প্রসঙ্গত, যাদের পক্ষে বাড়িতে কলা গাছ লাগানো সম্ভব নয়, তারা বাড়ির সদর দরজায় দু-কোনে একটা করে গলা গাছ সব সময় লাগিয়ে রাখবেন। দেখবেন দারুন উপকার মিলবে।

৫.মাঙ্গলিক দোষ কেটে যায়:

৫.মাঙ্গলিক দোষ কেটে যায়:

শাস্ত্র মতে প্রতি বৃহষ্পতিবার কলা গাছের পুজো করলে মঙ্গল দোষ কেটে যেতে শুরু করে। ফলে কোনও ধরনের বিপদ ঘটার আশঙ্কা যেমন কমে, তেমনি বৈবাহিক জীবনে কঠিন পরিস্থিতির সম্মুখিন হওয়ার সম্ভাবনাও আর থাকে না। প্রসঙ্গত, যাদের মঙ্গল দোষ রয়েছে, তারা যদি বিয়ের আগে কলা গাছের সঙ্গে বিয়ে সেরে নেন, তাহলে বিয়ের সময় এবং পরে কোনও ধরনের বিপদ ঘটার আশঙ্কা যায় কমে।

৬. কলা গাছের মহিমা:

৬. কলা গাছের মহিমা:

এমনটা অনেকেই বিশ্বাস করেন যে কলা হল ভগবান বিষ্ণু এবং মা লক্ষ্মীর প্রিয় ফল। তাই তো প্রতি বৃহষ্পতি বার ভগবান বিষ্ণুর পুজো করার সময় যদি প্রসাদ হিসেবে কলা নিবেদন করা হয়, তাহলে সর্বশক্তিমান বেজায় প্রসন্ন হন। ফলে জীবন পথে চলতে চলতে সামনে আসা যে কোনেও বাঁধা সরে যেতে সময় লাগে না। প্রসঙ্গত, এক্ষেত্রে আরেকটি বিষয় জেনে রাখা ভাল যে শ্রী গণেশের পুজো করার সময় যদি কলা পাতা নিবেদন করা হয়, তাহলে দেব বেজায় প্রসন্ন হন। ফলে সুখ এবং সমৃদ্ধির ছোঁয়া লাগে জীবনে।

৭. বাড়ির মঙ্গল হয়:

৭. বাড়ির মঙ্গল হয়:

শাস্ত্র এমনটা দাবি করা হয়েছে যে বৈশাখ, মাঘ এবং কার্তিক মাসের শুক্লা চতুর্দশির দিন যদি বাড়িতে কালা গাছ পোঁতা যায় এবং যতক্ষণ না পর্যন্ত গাছে ফল এবং ফুল ধরছে, ততক্ষণ খেয়াল রাখা যায়, তাহলে বাড়িতে অশুভ শক্তির প্রবেশ আটকে যায়। ফলে বাড়ির প্রতিটি সদস্যের মঙ্গল হয়।

Read more about: ধর্ম
English summary

Why do Hindus pray to a banana tree?

It is, indeed, a very sacred tree, whose every part is used for some purpose or the other. For example, the trunk of a banana is used to erect welcoming gates, and its leaves are used to serve food to guests.According to ancient scriptures, the banana tree is equated to “Devaguru Brihaspati” or planet Jupiter.
Story first published: Thursday, May 17, 2018, 11:16 [IST]
We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Boldsky sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Boldsky website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more