নানাবিধ খারাপ চিন্তার কারণে কি মাথা খারাপ? তাহলে রাশি ভেদে এই কাজগুলি করতে ভুলবেন না যেন!

Subscribe to Boldsky

খেয়াল করে দেখবেন এক এক দিন সকালে ঘুম ভাঙার পর থেকেই এমন সব ঘটনা ঘটতে শুরু করে দেয় যে একের পর এক খারাপ চিন্তায় মন এবং মস্তিষ্ক জর্জরিত হয়ে পরে। আর এই কারণে কখনও-সখনও এমন হাল হয় যে মন-মেজাজ এতটাই খিটখিটে হয়ে ওঠে যে কোনও কিছুতেই মন লাগতে চায় না। মনে হয় ঘর অন্ধকার করে শুয়ে থাকি। আর এমনটা করতে গিয়ে দুশ্চিন্তার জালে আরও জড়িয়ে যায় মন-প্রাণ।

এমন পরিস্থিতিতে কী করণীয়, তা নিশ্চয় অনেকেই বুঝে উঠতে পারেন না। তাই তো বলি বন্ধু, আমার-আপনার মতো যাদেরই প্রায়শই দুশ্চিন্তার কারণ মাথা খারাপ হওয়ার জোগার হয়, তারা দয়া করে একবার এই লেখাটা পড়তে ভুলবেন না যেন! কারণ এই লেখায় রাশি অনুসারে এমন কিছু উপায় সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে, যা মেনে চললে খারাপ চিন্তাকে নিমেষে জোড়া গোল দেওয়া সম্ভব হবে! তাই তো বলি বন্ধু, আর অপেক্ষা নয়, মনের অন্দরে জায়গা করে নেওয়া নানা খারাপ চিন্তাকে মারতে আপনাদের যে যে কাজগুলি করতে হবে, সেগুলি হল...

১. মেষরাশি:

১. মেষরাশি:

খারাপ চিন্তার কারণে পাগলা পাগলা লাগছে? তাহলে এক্ষুনি গিয়ে আধ ঘন্টা হেঁটে আসুন। দেখবেন মন হালকা তো হবেই। সেই সঙ্গে মন-মেজাজও চাঙ্গা হয়ে উঠবে। আসলে জ্যোতিষ বিশেষজ্ঞদের মতে এই রাশির জাতক-জাতিকারা ফিজিকালি খুব অ্যাকটিভ হন। তাই তো নিয়মিত শরীরচর্চা বা একটু আধটু হাঁটাহাঁটি করলে শরীর ভিতর এবং বাইরে থেকে এতটাই চাঙ্গা হয়ে ওঠে যে খারাপ চিন্তা ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারে না।

২. বৃষরাশি:

২. বৃষরাশি:

এই রাশির জাতক-জাতিকারা জেনে রাখুন, এবার থেকে যখনই দেখবেন খারাপ চিন্তা চারিপাশ থেকে ঘিরে ধরছে, তখনই একটু সময় বার করে মাসাজ বা স্পা করিয়ে আসবেন। এমনটা করলে দেখবেন স্ট্রেল লেভেল তো কমবেই, সেই সঙ্গে মনও আনন্দে ভরে উঠবে।

৩. মিথুনরাশি:

৩. মিথুনরাশি:

নতুন নতুন জিনিস জানার আগ্রহে আপনারা সারাক্ষণ মজে থাকেন। তাই তো বলি বন্ধু, আপনার এই গুণকে কাজে লাগিয়েই এবার থেকে খারাপ চিন্তাকে মারার চেষ্টা করতে হবে। আর কীভাবে করবেন এমনটা? এবার থেকে যখনই মনে হবে এদিক-সেদিকের নানা চিন্তা আকারণে এসে বাসা বাঁধছে মনে, তখনই পছন্দের কোনও বই পড়া শুরু করে দেবেন, নয়তো ইন্টারনেটে নতুন কোনও বিষয় নিয়ে একটু নেরেচেরেও দেখতে পারেন। আর যদি সে সব সুযোগ না থাকে, তাহলে কোনও বন্ধুকে ডেকে নিয়ে নানা বিষয় নিয়ে তুমুল আড্ডাও দিতে পারেন। দেখবেন এমনটা করলে বুঝে উঠতে পারবেন না কখন খারাপ চিন্তা দূরে পালিয়েছে।

৪. কর্কটরাশি:

৪. কর্কটরাশি:

কাছের মানুষদের সঙ্গে সময় কাটাতে আপনার দারুন লাগে। বিশেষত উইখএন্ডে সব এক সাথে বসে আড্ডা, খাওয়া-দাওয়া তো আপনার প্রথম পছন্দ। কি তাই তো? তাই বলি বন্ধু এবার থেকে যখনই মনে হবে মন খারাপ বা "কিছু ভালো লাগছে না" গোছের চিন্তা মাথায় ঘুরপাক খাবে, তখনই প্রিয় মানুষদের ডেকে নিয়ে আড্ডায় বসে যাবেন। দেখবেন উপকার পাবেই পাবেন। প্রসঙ্গত, ইচ্ছা হলে আরেকটা কাজও করতে পারেন। তা হল ঘর সাজানো। কারণ আপনার তো ঘর-দোর সাজিয়ে তুলতে দারুন লাগে! তাই তো এমনটা করলে দুশ্চিন্তা দূরে পালাতে সময় লাগবে না।

৫. সিংহরাশি:

৫. সিংহরাশি:

সারাক্ষণ স্পটলাইটে থাকতে আপনার দারুন লাগে! তাই তো মন খারাপ হলেই বন্ধু-বন্ধবদের ডেকে বাড়িতে পার্টি করতে ভুলবেন না যেন! আর সেখানে আপনিই যেহেতু মধ্যমণি, তাই এমন অ্যাটেশন পেয়ে দেখবেন মনও চাঙ্গা হয়ে উঠবে। আর যদি পকেট হালকা থাকে, তাহলে পার্টি-সার্টি না করে বরং একটু শপিং করে আসতে পারেন। কারণ তাতেও কিন্তু আপনার স্ট্রেস লেভল কমতে দেখবেন সময় লাগবে না।

৬. কন্যারাশি:

৬. কন্যারাশি:

খালি বসে থাকাটা আপনার একেবারে না-পাসান্দ। কারণ এমন সময়ই তো খারাপ চিন্তারা সব একের পর এক আক্রমণ শানায়। কি ঠিক বলেছি তো? তাই বলি বন্ধু অফিসের পর অল্প বিশ্রাম নিয়ে নিজেকে কোনও না কোনও কাজে সারাক্ষণ ব্যস্ত রাখতে ভুলবেন না। ইচ্ছা হলে হরেক স্বাদের পদ যেমন রান্না করতে পারেন, তেমনি বই পড়া বা নিজের পছন্দের অন্য যে কোনও কাজও ভাল অপশন হতে পারে! তবে যাই করুন না কেন, খালি বসে থাকা চলবে না। এমনটা করলে দেখবেন খারাপ চিন্তা আপনার ধারে কাছেও ঘেঁষতে পারবে না।

৭. তুলারাশি:

৭. তুলারাশি:

নানাবিধ খারাপ চিন্তার কারণে মাঝে মধ্যেই মন-মেজাজ একেবারে খিটখিটে হয়ে যায় নাকি? তাহলে বন্ধু আপনাদের নিয়ম করে সকাল-বিকাল কম করে ৩০ মিনিট প্রাণায়ম করতেই হবে। এমনটা করলে দেখবেন মন শান্ত হবে। সেই সঙ্গে খারাপ চিন্তাও দূরে পালাতে বাধ্য হবে।

৮. বৃশ্চিকরাশি:

৮. বৃশ্চিকরাশি:

এই রাশির জাতক-জাতিকারা বেজায় জটিল প্রকৃতির মানুষ হন। তাই তো এদের মাথায় সারাক্ষণ কিছু না কিছু চলতে থাকে। আর ঠিক এই কারণেই নানা ভাবনার মাঝে কখনও-সখনও খারাপ চিন্তাও প্রবেশ করে যায়। আর তখনই মন-মেজাজ একেবারে খিটখিটে হয়ে পরে। তবে বন্ধু আর চিন্তা নেই, এমন পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার উপায় আছে বৈকি। কী উপায়? আপনাদের যা চরিত্র তাতে এমন সময়ে যতটা সম্ভব আশেপাশের মানুষজনেদের সঙ্গে গল্প করতে হবে। আড্ডার বিষয় যাই হোক না কেন, এমনটা করলে দেখবেন উপকার পাবেন একেবারে হাতে-নাতে...!

৯. ধনুরাশি:

৯. ধনুরাশি:

নতুন নতুন জায়গা ঘুরতে যাওয়া, অজানাকে জানা এবং চুটিয়ে শপিং করা আপনার বেজায় পছন্দের। তাই এবার থেকে মন খারাপ হোক কি নানা কারণে দুশ্চিন্তা, এই কাজগুলির কোনওটি করতে ভুলবেন না যেন! আর যদি পকেট সঙ্গ না দেয়, তাহলে কাছেপিঠে নিকো পার্ক এবং ইকো পার্ক তো আছেই। সেখানে থেকেও ঘুরে আসতে পারেন। কারণ এমন হঠাৎ আউটিং করলে দেখবেন মন-মেজাজ নিমেষে চাঙ্গা হয়ে উঠবে।

১০. মকররাশি:

১০. মকররাশি:

এরা নিজের কাজকে বেজায় পছন্দ করেন। যেখানে অধিকাংশেই "অফিস শেষ হলে বাঁচি" এমন চিন্তায় মগ্ন থাকেন, সেখানে মকররাশির জাতক-জাতিকারা চেয়ে চেয়ে কাজ নেন। তাই তো বলি বন্ধু, এমন প্রকৃতির মানুষদের দুশ্চিন্তা কমানোর একটাই রাস্তা রয়েছে। আর তা হল নিজেকে ব্যস্ত রাখা। আর এমনটা করতে কাজের থেকে আর ভাল কোনও বিকল্প হয় নাকি!

১১. কুম্ভরাশি:

১১. কুম্ভরাশি:

আপনার আশেপাশে থাকা মানুষদের সাহায্য করতে আপনি সদা প্রস্তুত থাকেন। তি তাই তো? তাই তো বলি বন্ধু, এবার থেকে যখনই দেখবেন এদিক-সেদিকের চিন্তার কারণে মন খারাপ হয়ে যাচ্ছে, তখনই অপরকে সাহায্য করতে লেগে পরবেন। দেখবেন নিমেষে মন চাঙ্গা হয়ে উঠবে।

১২. মীনরাশি:

১২. মীনরাশি:

শুনতে আজব লাগলেও দুশ্চিন্তা থেকে বাঁচতে মীনরাশির জাতক-জাতিকাদের ক্ষেত্রে ঘুমের কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। তাই মন খারাপ হলেই এবার থেকে আপনারা কয়েক ঘন্টা ঘুমিয়ে নিতে ভুলবেন না যেন!

For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    Read more about: বিশ্ব
    English summary

    The Easiest Way To Make Yourself Happy, Based On Your Zodiac Sign

    each of us has the capability of bringing light to the world in our own ways. Astrology is a powerful reminder of that, whether you use it to track your horoscope or to understand your personality and what makes you tick. So keep your chin up and read on to find some fixes.
    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Boldsky sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Boldsky website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more