গরমকালে তরমুজ খাওয়া এত জরুরি কেন?

Posted By:
Subscribe to Boldsky

বছরের এই সময় পরিবেশ আমাদের বিপক্ষে চলে যায়। ফলে নানা ভাবে শরীর খারাপ হতে শুরু করে। সেই সঙ্গে সান স্ট্রোকের আশঙ্কা বেড়ে যাওয়ার কারণে জীবনহানির সম্ভাবনাও বহুগুমে বৃদ্ধি পায়। তাই তো গরমকালে সবদিক থেকে শরীরে নিরাপদে রাখা একান্ত প্রয়োজন। আর এই কাজে আপনাকে সাহায্য করতে পারে তরমুজ। তাই তো তাপদাহ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আরও বেশি করে তরমুজ খাওয়ার পরমার্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

কী এমন আছে তরমুজে, যা এতটা শরীরের উপকারে লাগে। এতে রয়েছে বিটা-ক্যারোটিন, ভিটামিন- এ, বি১, বি৬ এবং সি। সেই সঙ্গে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, বায়োটিন এবং কপার। সর্বোপরি ৯২ শতাংশ জলে পরিপূর্ণ হওয়ায় গরমকালে শরীরে জলের ঘাটতি রোধেও তরমুজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। অর্থাৎ এক কথায় প্রচন্ড তাপমাত্রায় শরীরকে সচল এবং সুস্থ রাখতে যা যা উপাদানের প্রয়োজন হয়, তা সব রয়েছে তরমুজে। এর পরেও কি প্রশ্ন করবেন, কেন গরমের সময় তরমুজে খেতে হবে। এখানেই শেষ নয়। আরও নানা ভাবে এই ফলটি আমাদের শরীরের গঠনে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। যেমন...

১. শরীরে জলের ঘাটতি হতে দেয় না:

১. শরীরে জলের ঘাটতি হতে দেয় না:

প্রচন্ড ঘামের কারণে গরমের সময় শরীরে মারাত্মকভাবে জলের ঘাটতি দেখা দেয়। আর এমনটা দীর্ঘ সময় ধরে হতে থাকলে শরীরের কর্মক্ষমতা কমে যায়। সেই সঙ্গে নানা ধরনের রোগ শরীরে বাসা বাঁধতে শুরু করে। এমনটা যাতে না হয় তার জন্য প্রতিদিন তরমুজ খাওয়া জরুরি। কারণ যেমনটা আগেও বলেছি এই ফলটির প্রায় ৯২ শতাংশই জলে পূর্ণ, ফলে এটি খেলে শরীর কোনও সময় জলের ঘাটতি দেখা দেয় না। ফলে ডিহাইড্রেশন হওয়ার আশঙ্কা হ্রাস পায়।

২. শরীর থেকে সব বিষ বের করে দেয়:

২. শরীর থেকে সব বিষ বের করে দেয়:

নানাভাবে শরীরে প্রতিনিয়ত জমা হচ্ছে নানা ক্ষতিকর টক্সিন বা বিষ। এই বিষাক্ত উপাদানগুলি যদি শরীর থেকে বেরিয়ে না যায়, তাহলে নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়। আর এই কাজে আপনাকে সাহায্য করতে পারে তরমুজ। এতে উপস্থিত জল এবং নানা রকমের পুষ্টিকর উপাদান টক্সিনদের বের করে দিতে দারুনভাবে কাজে লাগে। প্রসঙ্গত, শরীর যত টক্সিন মুক্ত থাকবে, তত অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে। সেই সঙ্গে নানাবিধ রোগ হওয়ার আশঙ্কাও হ্রাস পাবে।

৩. সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে:

৩. সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে:

শরীরে ভটামিন এ এবং সি-এর ঘাটতি দেখা দিলে ত্বক শুষ্ক হতে শুরু করে। সেই সঙ্গে সৌন্দর্য হ্রাস পায়। যেমনটা আগেও বলেছি, তরমুজে প্রচুর পরিমাণে এই দুই ভিটামিন থাকায় এটি খেলে ত্বকের শুষ্কটা দূর হয়। শুধু তাই নয়, ত্বক ধীরে ধীরে নরম এবং সুন্দর হতে শুরু করে। তাই প্যাচ প্যাচে গরমের সময়ও যদি সুন্দর, তুলতুলে ত্বকের অধিকারি হতে চান, তাহলে প্রতিদিনের ডায়েটে তরমুজের অন্তর্ভুক্তি মাস্ট! প্রসঙ্গত, তরমুজে উপস্থিত বিটা-ক্যারোটিন এবং লাইকোপেন, সান বার্নের আশঙ্কা কমায়। অর্থাৎ সূর্যালোকের কারণে ত্বক যাতে পুড়ে না যায়, সেদিকেও কেয়াল রাখে তরমুজ।

৪. হজম ক্ষমচার উন্নতি ঘটায়:

৪. হজম ক্ষমচার উন্নতি ঘটায়:

তরমুজে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় জল এবং ফাইবার, যা হজম ক্ষমতার উন্নতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। যেমনটা আপনারা সকলেই জানেন যে, নানা কারণে গরমের সময় হজম ক্ষমতা খুব কমে যায়। ফলে গ্যাস অম্বলের সমস্যা বৃদ্ধি পায়। তাই তো এমন রোগ থেকে দূরে থাকতে তরমুজের উপর ভরসা রাখতেই পারেন।

৫. চুলের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়:

৫. চুলের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায়:

গরমের সময় অতিরিক্ত তাপের কারণে চুলের সৌন্দর্য একেবারে নষ্ট হয়ে যায়। আপনিও যদি এমন সমস্য়ায় ভুগে তাকেন, তাহলে আর সময় নষ্ট না করে আজ থেকেই তরমুজ খাওয়া শুরু করুন। কেন বলুন তো? কারণ তরমুজে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন সি, যা শরীরে কেরাটিনের উৎপাদন বাড়িয়ে দেয়। ফলে চুল সুন্দর হতে শুরু করে। শুধু তাই নয়, এই উপাদানটি চুলকে শক্তপোক্ত করতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

৬. রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখে:

৬. রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখে:

আপনি কি উচ্চ রক্ত চাপের সমস্যায় ভুগছেন? তাহলে তো আপনাকে তরমুজ খেতেই হবে। কেন? কারণ এই ফলটিতে এমন কিছু পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে, যা রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশপাশি শরীরের প্রতিটি অংশে যাতে রক্ত সরবরাহ ঠিক মতো হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখে।

৭. দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটায়:

৭. দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটায়:

চোখের স্বাস্থ্যের উন্নতিও তরমুজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। কারণ এতে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন- এ। এই উপাদানটি রেটিনার ক্ষমতা বৃদ্ধি করে, সেই সঙ্গে নানাবিধ আই ইনফেকশনের আশঙ্কাও কমায়।

৮. মন খুশি রাখে:

৮. মন খুশি রাখে:

একেবারে ঠিক শুনেছেন। মন ভাল রাখতে তরমুজের কোনও বিকল্প নেই বললেই চলে। কেন জানেন? কারণ এতে রয়েছে বিপুল পরিমাণে ভিটামিন বি৬, যা নার্ভকে শিথিল করার পাশপাশি নানাবিধ হরমোনের ক্ষরণ যাতে ঠিক মতো হয়, সেদিকেও খেয়াল রাখে। ফলে মন খারাপ হওয়ার আশঙ্কা অনেকাংশেই হ্রাস পায়। তাই তো প্রতিদিন ব্রেকফাস্টে অল্প করে তরমুজ খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা।

Read more about: তরমুজ
English summary
The scorching sun will make you dehydrated and increase your chance of getting infections. But by including watermelon in your diet, you can keep your heart, brain and immune system in a perfect condition and working properly.বছরের এই সময় পরিবেশ আমাদের বিপক্ষে চলে যায়। ফলে নানা ভাবে শরীর খারাপ হতে শুরু করে। সেই সঙ্গে সান স্ট্রোকের আশঙ্কা বেড়ে যাওয়ার কারণে জীবনহানির সম্ভাবনাও বহুগুমে বৃদ্ধি পায়। তাই তো গরমকালে সবদিক থেকে শরীরে নিরাপদে রাখা একান্ত প্রয়োজন। আর এই কাজে আপনাকে সাহায্য করতে পারে তরমুজ। তাই তো তাপদাহ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আরও বেশি করে তরমুজ খাওয়ার পরমার্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।কী এমন আছে তরমুজে, যা এতটা শরীরের উপকারে লাগে। এতে রয়েছে বিটা-ক্যারোটিন, ভিটামিন- এ, বি১, বি৬ এবং সি। সেই সঙ্গে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, বায়োটিন এবং কপার। সর্বোপরি ৯২ শতাংশ জলে পরিপূর্ণ হওয়ায় গরমকালে শরীরে জলের ঘাটতি রোধেও তরমুজ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। অর্থাৎ এক কথায় প্রচন্ড তাপমাত্রায় শরীরকে সচল এবং সুস্থ রাখতে যা যা উপাদানের প্রয়োজন হয়, তা সব রয়েছে তরমুজে। এর পরেও কি প্রশ্ন করবেন, কেন গরমের সময় তরমুজে খেতে হবে। এখানেই শেষ নয়। আরও নানা ভাবে এই ফলটি আমাদের শরীরের গঠনে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। যেমন...
Story first published: Monday, April 3, 2017, 10:23 [IST]
Please Wait while comments are loading...