কেন ব্যবহার করবেন ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু’?

By: swaity das
Subscribe to Boldsky

চুল নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ তো আমরা সব সময়েই করে থাকি। কোন শ্যাম্পু, কোন কন্ডিশনার সবথেকে ভালো? কীভাবে চুল ঝরে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা পাবো, আরও কত কি! তবে, মুশকিল হচ্ছে, আমরা সাধারণত চুলের যত্নে যা ব্যবহার করে থাকি, সেই নিয়ে আমাদের অনেকরই কোনও সঠিক ধারণা নেই বললেই চলে। আচ্ছা, বলুন তো 'ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' কথার অর্থ কি? কি ভাবছেন? যে শ্যাম্পু আমদের চুল পরিষ্কার করে, সেই শ্যাম্পুর কথাই বলছি তাই তো? উঁহু, একদম ডাহা ফেল। আসলে প্রতিদিন যে শ্যাম্পু আমরা ব্যবহার করে থাকি, সেগুলি হল ক্লিঞ্জিং শ্যাম্পু। অর্থাৎ যা শুধু আমাদের চুল পরিষ্কার করে। আর 'ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' হল, সেই শ্যাম্পু, যা আমাদের চুল এবং স্কাল্প পরিষ্কার করে থাকে। এবারও বুঝলেন না নিশ্চয়ই। ভাবছেন? সাধারণ শ্যাম্পু দিয়েই তো চুল আর স্কাল্প পরিষ্কার হয়ে যায়, তাহলে কি এমন নতুন আছে 'ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু'-তে? সবই বলব। তবে সেটা জানতে হলে, পুরো লেখাটা যে পড়তে হবে।

শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনিং

'ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' হল এমন এক ধরণের শ্যাম্পু, যা আপনার চুলের গোঁড়া এবং চুল পরিষ্কার তো করবেই, সেই সঙ্গে বজায় থাকবে আপনার চুলের স্বাস্থ্যও, যা কিনা আপনার প্রতিদিনের ব্যবহারের শ্যাম্পু করতে পারে না। সবথেকে বড় কথা, 'ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' মানে কিন্তু শুধুমাত্র মহিলাদের জন্য নয়, পুরুষেরাও এই শ্যাম্পু ব্যবহার করে উপকার পাবেন।

এই কারণেই তো আজ বোল্ডস্কাই আপনাদের জানাতে চলেছে কেন 'ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' ব্যবহার করা উচিত।

১. চুলে জেল, ক্রিম ব্যবহার করে থাকেন?

১. চুলে জেল, ক্রিম ব্যবহার করে থাকেন?

অনেকেই, সে পুরুষ হোক বা নারী, সারাদিন চুল যাতে একেবারে পরিপাটি এবং চকচকে থাকে, তাঁর জন্য চুলে প্রতিদিন জেল, ক্রিম, স্প্রে ইত্যাদি ব্যবহার করে থাকেন। আর কে না জানে এই ধরণের জিনিসগুলিতে থাকে প্রচুর পরিমাণে কেমিক্যাল, যা আমাদের চুল এবং স্কাল্প দুটোর পক্ষেই খুব ক্ষতিকর। আমাদের দৈনন্দিন ব্যবহারের শ্যাম্পু এই ধরনের কেমিক্যাল চুল থেকে দূর করতে পারে না। আর ঠিক এই কারণেই আমাদের সকলেরই ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' ব্যবহার করা দরকার।

২. দৈনন্দিন ব্যবহারের শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার পুরোপুরি প্রত্যাশা পূরণ করতে পারে না কেন?

২. দৈনন্দিন ব্যবহারের শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার পুরোপুরি প্রত্যাশা পূরণ করতে পারে না কেন?

বিজ্ঞাপনের দাবি মতো আমরা সকলেই একগাদা টাকা নষ্ট করি শুধু শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার কিনতে। কিন্তু ১-২ বার ব্যবহার করলেই বুঝতে পারি যে, বিজ্ঞাপনের দাবি বারো আনাই মিথ্যা। কারণ বাজার চলতি নামকরা শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার আমাদের প্রত্যাশা পূরণ করতে কখনোই পারে না। কারণ আমাদের চুলে যে পরিমাণ শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার করা হয়, তাঁর পুরোটাই গন্ধ এবং রঙের দ্বারা পরিপূর্ণ। আর ঠিক এই কারণেই দৈনন্দিন ব্যবহারের শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার একশো শতাংশ কাজে আসে না। তবে এই ঘাটতি ম্যাজিকের মতো পূরণ হয় ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' ব্যবহার করলে।

৩. ড্রাই শ্যাম্পু এবং সুইমিং পুল কি চুলের ক্ষতি করে?

৩. ড্রাই শ্যাম্পু এবং সুইমিং পুল কি চুলের ক্ষতি করে?

চুলে নতুন ধরণের কিছু ব্যবহার করতে কে না চায় বলুন! তবে মুশকিলটা হচ্ছে এমন কিছু জিনিস আমরা ব্যবহার করে থাকি, যা আদতে আমাদের চুলের মারাত্মক ক্ষতি করে থাকে। যেমন ধরুন, ড্রাই শ্যাম্পু। ড্রাই শ্যাম্পু আমাদের চুলের গোঁড়ায় আরও বেশী করে কেমিক্যাল জমা হতে সাহায্য করে। এছাড়াও এর ফলে চুলে থাকা নোংরা আরও বসে যায়। তাই ড্রাই শ্যাম্পু চুলের জন্য একদমই ভালো নয়। এক্ষেত্রে আরেকটা বিষয মাথায় রাখতে হবে। সকাল হোক বা বিকেল, হাত পা ছুঁড়ে সুইমিং পুলে জলকেলি করতে কে না ভালবাসেন? কিন্তু সুইমিং পুলের জল মানেই কিন্তু প্রচুর পরিমাণে ক্লোরিন মেশানো, যা চুলের জন্য খুবই খারাপ। আর এই ধরণের চুলও সাধারণ শ্যাম্পুর দ্বারা যত্ন করা সম্ভব নয়। তাই অবশ্য ভাবে দরকারি হয়ে পড়ে ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু'র।

তবে, মাথায় রাখবেন ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' কিন্তু প্রতিদিন ব্যবহার করা একেবারেই উচিত না। কারণ এমনটা করলে চুল অত্যন্ত শুষ্ক এবং প্রাণহীন হয়ে পড়ে। দু সপ্তাহে অথবা মাসে একবার ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' ব্যবহার করা যেতে পারে।

তাহলে জেনা হল তো কেন আমাদের ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু' ব্যবহার করা উচিত। কিন্তু কিভাবে আর কোথায় পাবেন এই ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু'? বোল্ডস্কাই চিরকালই প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি উপাদানকে আপনাদের সামনে তুলে ধরেছে। আজও তার ব্যতিক্রম হবে না। কারণ প্রচুর দাম আর কোনও নামী ব্র্যান্ড নয়, ঘরে বসেই কিভাবে তৈরি করতে পারবেন ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু', তারই হদিশ দেবে এখন বোল্ডস্কাই বাংলা।

কি কি উপাদান দিয়ে তৈরি করা যেতে পারে ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু’?

কি কি উপাদান দিয়ে তৈরি করা যেতে পারে ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু’?

উপাদান -

২ টেবিল চামচ বেকিং সোডা

১ টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনিগার

বানানোর পদ্ধতি:

বানানোর পদ্ধতি:

১. প্রথমে ২ টেবিল চামচ বেকিং সোডা দুই কাপ গরম জলে মিশিয়ে নিতে হবে।

২. এবার আপেল সিডার ভিনিগার মেশাতে হবে।

৩. চুল ভিজিয়ে নেওয়ার পর এই মিশ্রণটি ব্যবহার করতে হবে।

৪. ১৫ মিনিট রেখে দিন।

৫. সময় হয়ে গেলে ঠাণ্ডা জল দিয়ে চুলটা ধুয়ে ফেলুন।

৬. এই মিশ্রণটি বা ‘ক্ল্যারিফাইং শ্যাম্পু'টি তিন অথবা চার সপ্তাহ অন্তর একবার ব্যবহার করতে হবে।

English summary
What is the first thing that comes to your mind when you hear the words 'clarifying shampoo'? Is it something different than a regular shampoo? Aren't all shampoos meant to clarify? What you are doing here is confusing a cleansing shampoo for a clarifying shampoo. Let me tell you, both are poles apart.
Story first published: Friday, August 11, 2017, 12:55 [IST]
Please Wait while comments are loading...