গর্ভাবস্থায় কঠোর উদর কারণসমূহ

Posted By: Super Admin
Subscribe to Boldsky

গর্ভাবস্থায়, মহিলারা সাধারণত অনেক শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তনের সম্মুখীন হন| সকল গর্ভবতী নারীরা ক্রমবর্ধমান ও স্ফীতিশীল উদরের সাক্ষী হয়ে থাকেন| আপনার গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় তিনমাসের মধ্যে, জরায়ু অর্ধেক পথ পৌঁছে যাবে এবং আপনার শ্রোণী হাড় এবং নাভির মধ্যে আটকে যাবে|

এই সময় জরায়ুর মাপ বিস্মৃতির সম্ভাবনা বেশি হয় এবং শেষ পর্যন্ত পেটের দেয়ালে চাপ সৃষ্টি করে, যার ফলে , আপনার উদরে কঠিন অনুভূতি হয়| দিন এগোতে থাকলে উদরের এই কঠোরতা বেশ স্বাভাবিক হয়ে যায়| এই অবস্থা অনেক গর্ভবতী মহিলাদের জীবনেই ঘটে থাকে| গর্ভবতী নারীর, গর্ভাবস্থায় কঠিন উদর থাকবে এই সম্পর্কে চিন্তা করার কিছুই নেই|

উদরের চারপাশে কঠিন অনুভূতি হলে বিস্মিত বোধ করবেন না কারণ এটা আপনার ক্রমবর্ধমান জরায়ুর জন্য হয়| কিছু ক্ষেত্রে, এই অনুভূতি গর্ভাবস্থার 12 সপ্তাহ শেষের পরে হতে পারে| গর্ভাবস্থার এই কঠিন উদর, ব্যক্তির দেহের ধরনের উপরেও অনেকটা নির্ভর করে| কখনও কখনও, চরম কঠোরতা অধিকাংশ গর্ভবতী মহিলাদের জন্য অপ্রয়োজনীয় মানসিক চাপ সৃষ্টি করতে পারে| এমনকি আপনি মনমরা এবং কোনও কিছুতে মনোযোগ দিতে সক্ষম নাও হতে পারেন|

এই সকল আবেগ আপনি গর্ভবতী অবস্থায় মুখোমুখি হতে পারেন| আপনি যদি মানসিকভাবে অস্বস্তিতে থাকেন, তাহলে অবিলম্বে জন্মপূর্ব যত্ন নিন| কেন গর্ভবতী মহিলাদের গর্ভাবস্থার দ্বিতীয় তিনমাসের (21 সপ্তাহে)মধ্যে কঠিন উদরের মুখোমুখি হতে হয় আসুন দেখে নিন|

গর্ভাবস্থায় কঠোর উদর

জরায়ু

শিশু জরায়ুতে বড় হতে থাকে, যা মূত্রাশয় এবং মলদ্বার মধ্যে শ্রোণী গহ্বরে অবস্থিত| কটিরেখা প্রসারিত হবে শিশু এবং জরায়ু বড় হওয়ার সাথে সাথে| গর্ভাবস্থায় কঠিন উদরের প্রধান কারণ হল জরায়ু উদরের উপর চাপ প্রয়োগ করা শুরু করে এবং এটি প্রসারিত করতে থাকে| বাস্তবে, প্রথম তিনমাসের সময় এটা ঘটে যখন জরায়ু প্রসারিত হতে শুরু করে| তাছাড়া, যখন দ্বিতীয় তিনমাসের সময় শিশুর বৃদ্ধি ঘটে, পেটে জলের ভলিউম বৃদ্ধি পায় এবং তা কঠিন উদরের সূত্রপাত হতে পারে|

গর্ভাবস্থায় কঠোর উদর

ফিটাল কঙ্কালের বিকাশ

সাধারণত গর্ভবতী মহিলারা দ্বিতীয় তিনমাসের পর অত্যধিক কঠোরতা উপসর্গের সম্মুখীন হন কারণ তখন ভ্রূণের কঙ্কালের বিকাশ ঘটে এবং একই সময়ে বিস্তৃতি পায়| শিশুর শরীরে হাড় আকৃতি নিতে শুরু করলে উদর কঠিন হয়ে যায়| অন্যদিকে, যাহাই হউক না কেন গর্ভাবস্থার শেষের দিকে আপনার উদর শিলার ন্যায় কঠিন হতে শুরু করবেই|

গর্ভাবস্থায় কঠোর উদর

রোগা এবং মোটা মহিলা

গর্ভাবস্থায় রোগা এবং মোটা মহিলাদের কঠিন উদর শরীরের বিভিন্ন ধরনের জন্য বিভিন্ন হতে পারে|প্রধানত, রোগা মহিলারা গর্ভাবস্থার প্রথম দিকে কঠিন উদর অনুভব করেন এবং মোটা মহিলারা তৃতীয় তিনমাসের মধ্যে কঠোরতা অনুভব করে থাকেন|

গর্ভাবস্থায় কঠোর উদর

স্ট্রেচ মার্ক্স্

গর্ভবতী মহিলারা এই সময় সাংঘাতিক পেটে ব্যথা অনুভব করে থাকেন এবং এটা শুধুমাত্র প্রসবের পর নিরাময় হতে পারে|ব্যথা তৃতীয় তিনমাসের মধ্যে অনুভূত হলে তা স্বাভাবিক হিসেবেই গণ্য করা হয়, যা শিশুর বৃদ্ধি ও জরায়ুর বিস্মৃতির জন্য ঘটে থাকে| আপনি যদি ক্রমাগত ব্যথা অনুভব করেন, তাহলে জন্মপূর্ব যত্ন নিন| এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণভাবে, পেট শক্ত হওয়ার আরেকটি কারণ হল স্ট্রেচ মার্ক্স্ গঠন| ভিটামিন এ ক্রিম যেমন রেটিনা এ দিয়ে পেটের ওপর মৃদু মালিশে স্ট্রেচ মার্ক্স্ দূর করা যেতে পারে|

গর্ভাবস্থায় কঠোর উদর

কোষ্ঠকাঠিন্য

কঠিন উদরের অন্যান্য মূল কারণ অপরিযাপ্ত খাদ্য ও অনুপযুক্ত খাদ্যাভ্যাস, যেমন খুব দ্রুত খাবার খাওয়া| খাদ্য দ্রুত খেলে, আপনার কোষ্ঠকাঠিন্যে ভোগার সম্ভবনা থাকে| গর্ভবতী মহিলাদের জন্য কঠিন উদরের আরেকটি সাধারণ কারণ হল কোষ্ঠকাঠিন্য| কোমল পানীয় এবং অন্যান্য পানীয় পেট শক্ত ও ব্যথার কারণ হতে পারে| হজমে সমস্যা এড়াতে, গর্ভবতী মহিলাদের উচ্চ ফাইবার যুক্ত খাবার খাওয়া উচিত|

গর্ভাবস্থায় কঠোর উদর
For Quick Alerts
ALLOW NOTIFICATIONS
For Daily Alerts

    English summary

    গর্ভাবস্থায় কঠোর উদর | কঠোর উদরের কারণ |গর্ভাবস্থায় আতঙ্ক | গর্ভাবস্থা উপদেশ

    During pregnancy, it is quite common for women to experience a lot of physical and mental changes. All pregnant women will get to witness a growing and protruding stomach. In the second trimester of your pregnancy, the uterus has already reached half way and will be stuck between your pelvic bone and belly button.
    Story first published: Wednesday, November 9, 2016, 14:10 [IST]
    We use cookies to ensure that we give you the best experience on our website. This includes cookies from third party social media websites and ad networks. Such third party cookies may track your use on Boldsky sites for better rendering. Our partners use cookies to ensure we show you advertising that is relevant to you. If you continue without changing your settings, we'll assume that you are happy to receive all cookies on Boldsky website. However, you can change your cookie settings at any time. Learn more