দুর্ভাগ্যের হাত থেকে রক্ষা : উপায়

By: Riddhi Ghosh
Subscribe to Boldsky

আপনি যদি কুসংস্কারি হন,তাহলে ভাববেন না আপনি একাই এই পৃথিবীতে।এরকম বহু লোক আছে যারা কুসংস্কারে বিশ্বাস করে এবং খুব মন দিয়ে সেগুলো মানে।নানারকমের কুসংস্কার মানুষ সারা পৃথিবী জুড়ে মানে।যেমন ধরুন আপনি কোনও কাজে যাচ্ছেন,কালো বিড়াল রাস্তা পার করলে সেটা খুব অপয়া মানা হয়।অনেকে আছেন যারা মনে করে আয়নার কাঁচ ভাঙা কোনও কিছু খারাপ হতে চলেছে তার ইঙ্গিত।

আমরা সবাই এই খারাপ ভাগ্যের হাতে পড়ি যা আমাদের দিন খারাপ করে, এবং যথেষ্ট ভীতির সঞ্চার করে।আপনি যদি এই দুর্ভাগ্যের হাত থেকে রক্ষা পেতে চান তাহলে আপনি ঠিক জায়গায় এসেছেন।অনেকে মনে করেন যে পুজো করলে ও ভাল কর্মের ফলেই আপনি খারাপ ভাগ্যের হাত থেকে মুক্তি পেতে পারেন।তবে এছাড়াও অনেক উপায় আছে যাতে আপনি খারাপ ভাগ্যের হাত থেকে রেহাই পেতে পারেন।লোকে মানে যে যাই করুন না কেন,আপনার ভাগ্যে যে দুর্ভাগ্য ভগবান লিখেছে তা আপনাকে মানতেই হবে।

তবুও সারা পৃথিবীতে অনেক রকমের উপায় মানুষ অবলম্বন করে থাকে খারাপ ভাগ্যের হাত থেকে নিজেকে বাঁচানোর জন্য।যেমন ধরুন নুন খারাপ ভাগ্য লড়তে সাহা্য্য করে।অনেক জায়গায় এরকম প্রচলন আছে যে বাঁ কাঁধের ওপর দিয়ে নুন ছেটানো হয়,খারাপ ভাগ্য তাড়িয়ে ভাল ভাগ্য আনার জন্য।সেরকমই অনেকে মানেন নুন দিয়ে চান করলে শুধু চামড়া পরিস্কার হয় তাই না, নেতিবাচক উপাদানগুলো জীবন থেকে দূর হয়।এখানে দেওয়া হল কিছু উপায় কী করে স্বাভাবিক ভাবে খারাপ ভাগ্য থেকে রেহাই পাবেন।

নুন

অনেক জায়গায় মনে করা হয় যে নুন দিয়ে চান করলে শুধু শরীর পরিস্কার হয় তাই নয়, যা কিছু খারাপ, নেতিবাচক - সব মুছে যায়।আপনি আপনার বাঁ কাঁধের ওপর দিয়ে নুন পিছনে ছুঁড়তেও পারেন। বাড়ির চারপাশে নুন ছড়ালেও কাজ হতে পারে।

ভাঙা আয়না

অনেক লোকেরই মনে এই ধারণা যে ভাঙা কাঁচ রাখলে খারাপ ভাগ্য ডেকে আনে।আবার অনেক সংস্কৃতিতে মানা হয় ভাঙা কাঁচ ছড়ালেও আগামী সাত জন্মের জন্য আপনরা ভাগ্য বাধা হয়ে গেল।তাই কাঁচটা গুঁড়ো করে সেটা হাওয়ায় ছড়িয়ে দেওয়া ভাল।

চাবি পড়ুন

ভাগ্য ফেরাতে অনেকেই মনে করে তাবিজ জাতীয় কিছু পড়া ভাল।অনেক সংস্কৃতিতে চাবিকে সৌভাগ্যে চাবি বলে মনে করা হয়ে থাকে।মনে করা হয় যে তিনটে চাবি পরলে ভাগ্যের তিনটে দরজা সহজে খোলে - ধন, স্বাস্থ্য ও ভালবাসা।

ঘোড়ার নাল

বাড়ির দরজায় ঘোড়ার নাল ঝুলিয়ে রাখলে কুদৃষ্টির হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।আপনি ঘোড়ার নালের মত দেখতে গলার লকেট পড়লেও ভাল।খেয়াল রাখবেন যেন নালের মাথাটা ওপরের দিকে, সৌভাগ্যের জন্য।

ভুঁই তুলসি পোড়ান

এটাকে ধুনো দেওয়া বা প্রলেপ দেওয়াও বলা হয়। এতে যা কিছু অশুভ, তার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।ভুঁই তুলসি পোড়ান, ও তার ধোঁওয়া বাড়ির প্রতি কোণায় ছড়িয়ে দিন।জানলাগুলো খুলে দিন, যাতে অশুভ শক্তি বিতাড়িত হয়ে খারাপ ভাগ্য বিদায় নেয়।

কর্ম

আপনার কর্মই আপনার নিয়তি নির্ধারণ করে।আপনি যদি ভাল কাজ করেন,আপনার দুর্ভাগ্যকে আপনি অনেকটাই কমাতে পারেন।এছাড়া আপনার কর্ম আপনাকে শক্ত সবল করে কঠিন সময়ের জন্য।

ফুল

কিছু সংস্কৃতিতে শরীরের চক্রগুলো পরিস্কার করলেই ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয়।সাতটা বিভিন্ন রঙের ফুল নিন, সাদা ছাড়া।ফুলগুলো জলে ভিজিয়ে রোদে রাখুন এক ঘন্টার জন্য।ফুলের পাপড়ি থেকে জল সব ভাল গুণগুলো টেনে নেয়। এরপর এই জলে চান করুন। পাপড়িগুলো কাগজে মুড়ে ফেলে দিন।

পুজো

আধ্যাত্মিক পথে থাকলে আপনি ইতিবাচক শক্তি ও সৌভাগ্যকে আকর্ষণ করে।এতে আপনার মনের ও আত্মার জোর ও বৃদ্ধি পায়।

Read more about: জীবন, উদ্ভট
English summary
If you are superstitious, then you need not think you are the only one in this world. There are many people who believe in superstitions and follow them with utmost belief. There are many types of superstitions followed by people across the world.
Please Wait while comments are loading...