মুখের গন্ধ দূর করতে হার্বাল মাউথ ওয়াশ

By: Nayan Munshi
Subscribe to Boldsky

মুখ থেকে বিকট গন্ধ বেরচ্ছে। আর পালাচ্ছে সবাই কাছ থেকে। এমনকী বাড়ির লোকেরাও! এমন দৃশ্য়ের সাক্ষি থাকতে নিশ্চয় কেউ চান না। তাহলে উপায়? বজার চলতি মাউথ ওয়াশ ব্য়বহার করতে পারেন। আরে তাতেও তো সমস্যা! বেশিরভাগ মাউথ ওয়াশেই অ্যালকোহল ব্য়বহার করা হয়। আর এমন জিনিস দীর্ঘ দিন ব্য়বহার করলে দাঁত খারাপ হতে বাধ্য়।

চিন্তা নেই। এমন এক রেসিপি আছে যা দিয়ে বাড়িতেই বানিয়ে ফলতে পারেন হার্বাল মাউথ ওয়াশ। এতে থাকবে না কোনও ক্ষতিকর কেমিকাল। ফলে দাঁতের চিন্তাও আর করতে হবে না। তাহলে অপেক্ষা কিসের। চলুন দেখে নি কী কী উপাদান দিয়ে বানিয়ে ফলতে পারেন মিন্ট হার্বাল মাউথ ওয়াশ। এটি বানাতে প্রয়োজন পড়বে লবঙ্গের পাউডার, পিপারমেন্ট অয়েল এবং অ্যাপেল সিডার ভিনিগার।

লবঙ্গে থাকে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিসেপটিক, অ্যান্টিমাইক্রাবিয়াল এবং অ্যান্টিভাইরাল প্রপাটিজ। ফলে এটি ক্য়াভিটিজে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমানোর পাশাপাশি ব্য়াকটেরিয়ার সংক্রমণ কমাতেও সাহায্য় করে।

পিপারমেন্ট তেলে উপস্থিত মেন্থল আবার সারাদিন মুখে গন্ধ হতে দেয় না। আর অ্যাপেল সিডার ভিনিগার কী কাজ করে? এটিতে অসেটিক অ্যাসিড এবং মেলিক অ্যাসিড থাকায় এই ভিনিগার ব্য়াকটেরিয়া মারতে সাহায্য় করে।

তাহলে এবার দেখে নেওয়া যাক হার্বাল মাউথ ওয়াশ বানানোর পদ্ধতি।

ধাপ ১:

ধাপ ১:

বয়াম নিন প্রথমে। তারপর তাতে এক কাপ জল মেশান। ইচ্ছা হলে গরম জলও ব্য়বহার করতে পারেন। কিন্তু মনে রাখবেন যতক্ষণ না জলটা ঠান্ডা হয়ে যাচ্ছে, ততক্ষণ তাতে অন্য় কোনও উপাদান দেবেন না।

ধাপ ২:

ধাপ ২:

এবার জলে আর্ধেক কাপ অ্যাপেল সিডার ভিনিগার মেশান। এই ভিনিগারে অ্যাসিডিক উপাদান থাকায় এটি শুধু ক্ষতিকর ব্য়কটেরিয়াকেই মারে না, সেই সঙ্গে দাঁতের মধ্য়ে জমে থাকা বর্জকেও দূর করে।

ধাপ ৩:

ধাপ ৩:

তিন-চারটি লবঙ্গ নিয়ে ভালো করে সেগুলি গুঁড়ো করে নিন। তারপর এক চামচ মাপের সেই গুঁড়ো লবঙ্গ নিয়ে ভালো করে মেশান ভিনিগারের সঙ্গে।

ধাপ ৪:

ধাপ ৪:

এবার এই মিশ্রনে পাঁচ ড্রপ পিরাপমেন্ট তেল মেশান। যেমনটা আগেও বলেছি পিপারমেন্ট তেল সারাদিন মুখের থেকে যাতে বাজে গন্ধ না আসে সেদিকে খেয়াল রাখে।

ধাপ ৫:

ধাপ ৫:

ইচ্ছা হলে এই মিশ্রনে আপনি কয়েক ফোঁটা লেবুর রসও মেলাতে পারেন। লেবুতে সাইট্রিক অ্যাসিড থাকায় এটি দাঁতের দাগ দূর করতে দারুন কাজে আসে।

ধাপ ৬:

ধাপ ৬:

এবার বয়ামের ঢাকনা ভালো করে বন্ধ করে দিয়ে তা ঠান্ডা জায়গায় রাখুন। এক সপ্তাহ পরে সুতির কাপড় দিয়ে মিশ্রনটি ভালো করে ছেঁকে নিন। ব্য়স এবার তৈরি আপনার হার্বাল মাউথ ওয়াশ।

ধাপ ৭:

ধাপ ৭:

মাউথ ওয়াশটি ব্য়বহারের আগে সেটি ভালো করে ঝাকিয়ে নিন। তারপর একমুখ সেই মাউথ ওয়াশ নিয়ে, এক-দু মিনিট ভালো করে কুলকুচি করে ফেলে দিন।

ধাপ ৮:

ধাপ ৮:

মাউথ ওয়াশ ব্য়বহারের পর ভুলেও মুখ ধোবেন না যেন! প্রসঙ্গত, কুলি করার সময় মিশ্রনটি গিলে ফেলবেন না। আর যদি কোনও সময় ভুলবশত এমনটা হয়ে যায় তাহলে পরিমাণ মতো জল পান করবেন কিন্তু!

আরও কিছু টিপ:

আরও কিছু টিপ:

একেবারে অনেক পরিমাণে এই মিশ্রন বানাবেন না। দীর্ঘদিন রেখে দিলে মাউথ ওয়াশের মান খারাপ হয়ে যায়।

এই মাউথ ওয়াশ বানানোর আগে জেনে নিন এতে ব্য়বহৃত কোনও উপাদান থেকে আপনার অ্যালার্জি হয় কিনা।

ইচ্ছা হলে আপনি এই মিশ্রন বানানোর সময় লবঙ্গ পাইডারের পরিবর্তে টি ট্রি তেলও ব্য়বহার করতে পারেন।

সবশেষে:

সবশেষে:

রোজ যদি এই মাউথ ওয়াশ ব্য়বহার করতে পারেন তাহলে শুধু গন্ধ দূর হবে না, সেই সঙ্গে আপনার মুখের ভেতরের সার্বিক সাস্থ্য়ও ভালো থাকবে।

English summary
Don't know about you, but we definitely don't like the burning aftermath of mouthwash. And most mouthwashes are potent carriers of alcohol, which can cause teeth-staining, increase tartar formation and temporarily alter the taste of your mouth.
Please Wait while comments are loading...