জবা ফুলের তেলের উপকারিতা

Subscribe to Boldsky

ত্বক এবং চুলের সৌন্দর্য বাড়াতে জবা তেলের কোনও বিকল্প নেই। এই ফুলটিতে এমন কিছু উপাদান রয়েছে , যা খুশকির সমস্যা দূর করতে এবং চুল পড়া কমাতে দারুন কাজে দেয়। শুধু তাই নয়, আকালে চুল সাদা হয়ে যাওয়া আটকাতেও এটি সাহায্য় করে। প্রসঙ্গত, জবা ফুলের তেলে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন-সি, এ এবং আলফা-হাইড্রোক্সিল অ্যাসিড থাকে, যা চুলের স্বাস্থ্য় ভালো করে।

তাহলে চলুন জেনে নেওয়া এই বিশেষ তেলটির আরও কিছু গুণাগুণ সম্পর্কে।

১. স্কাল্পের চুলকানি কমায়:

ভিটামিন- এ এবং সি স্কাল্পের চুলকানি কমাতে সাহায্য় করে। আর এই দুটি ভিটামিনই প্রচুর মাত্রায় রয়েছে জবা ফুলে। তাই তো স্কাল্পের নানা সমস্য়া কমাতে জবা ফুলের কোনও বিকল্প নেই। পরিমাণ মতো জলে কয়েকটি জবা ফুল দিয়ে সেগুলিকে সেদ্ধ করে নিন। তারপর সেই জল ঠান্ডা করে চুলে লাগান। প্রসঙ্গত, জবা ফুলের তেল লাগালেও একই উপকারিতা পাওয়া যায়।

২. চুলকে সহজে বুড়িয়ে যেতে দেয় না:

নানা কারণে অনেকের চুল সময়ের আগেই সাদা হয়ে যেতে শুরু করে। জবা ফুল এক্ষেত্রে দারুন কাজে আসে। শুধু চলের বয়স হয়ে যাওয়া আটকাতেই নয়, নতুন চুলের বৃদ্ধি ত্বরান্বিত করতেও এই ফুলটির জুড়ি মেলা ভার। কয়েকটি জবা ফুল নিয়ে মিক্সারে সেগুলিকে গুঁড়ো করে নিন। এবার জবা ফুলের সেই পাউডার, এক কাপ দইয়ের সঙ্গে মেশান। এই মিশ্রনে পরিমাণ মতো জবা ফুলের তেল দিয়ে দিতে ভুলবেন না। সবকটি উপকরণ ভালো করে মিশিয়ে তারপর সেই মিশ্রন স্কাল্পে লাগান। কিছু সময় রেখে হালকা গরম জল দিয়ে চুলটা ধুয়ে ফেলুন।

৩. চুলকে শক্ত-পোক্ত করে:

নারকেল তেলের সঙ্গে জবা ফুলের তেল মিশিয়ে প্রতিদিন চুলে লাগান। দেখবেন অল্প দিনেই আপনার চুলের স্বাস্থ্য় ভালো হতে শুরু করেছে। জবা ফুলের পাউডারের সঙ্গে কয়েক ড্রপ নারকেল তেল এবং জবা ফুলের তেল মিশিয়ে নিন। তরপর এই মিশ্রনটি কিছু সময় গরম করে স্কাল্পে লাগিয়ে ফেলুন। যখন দেখবেন মিশ্রনটা শুকিয়ে গেছে তখন ভালো করে জল দিয়ে মাথাটা ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন যদি এই মিশ্রনটা চুলে লাগাতে পারেন, তাহলে দেখবেন অল্প দিনেই চুলের স্বাস্থ্য় ফিরে যাবে।

৪. খুশকি দূর করে:

মেথি বীজের সঙ্গে জবা গাছের ফুল মিলিয়ে প্রতিদিন মাথায় লাগান। খুশকি কমাতে এই ফরমুলাটি দারুন কাজে আসে। এক মুঠো মেথি বীজ নিয়ে সেগুলিকে জলে ভিজিয়ে রাখুন এক রাত্রি। পরের দিন একটা মিক্সারে মেথি বীজগুলি দিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে ফেলুন। এই পেস্টটির সঙ্গে এবার পরিমাণ মতো অলিভ অয়েল এবং জবা ফুলের তেল মিশিয়ে একটা মিশ্রন বানিয়ে ফেলুন।এখানেই শেষ নয়, এই মিশ্রনে অল্প করে জবা ফুলের পাউডার মেশান এবার। সবকটি উপকরণ ভালো করে মিশিয়ে সেটি স্কাল্পে লাগান। যখন দেখবেন মিশ্রনটি একেবারে শুকিয়ে গেছে, তখন হালকা গরম জল দিয়ে চুলটা ধুয়ে ফেলুন। এই ঘরোয়া চিকিৎসাটি প্রতিদিন করলে দেখবেন খুশকির সমস্য়া দূরে পালাচ্ছে।

৫. চল সাদা হওয়া আটকায়:

অকালে চুল সাদা হয়ে যাওয়া আটকাতে কাজে লাগাতে পারেন জবা ফুলকে। এক মুঠো মেহেন্দি পাতা নিয়ে তার সঙ্গে সম পরিমাণ জবা ফুল মিশিয়ে একটা পাউডার বানিয়ে ফেলুন। তারপর সেই পাউডারে কয়েক ড্রপ লেবু, জবা ফুলের তেল এবং দই মিশিয়ে একটা পেস্ট বানান। এবার সেই পেস্টটা ভালো করে চুলে লাগিয়ে কম করে ১৫ মিনিট মাসাজ করুন। তারপর হালকা গরম জল দিয়ে চুলটা ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। পরের দিন মনে করে শেম্পু করতে ভুলবেন না যেন!

৬. চুল ও স্কাল্পকে ভালো রাখতে:

৫-৬ চামুচ জবা ফুলের তেলের সঙ্গে সমপরিমাণ আমলা পাউডার মেশান। তাতে অল্প করে লেবুর রস দিন। এবার সবকটি উপকরণ ভালো করে মিশিয়ে স্কাল্পে লাগান। ৪০ মিনিট পরে শেম্পু দিয়ে ভালো করে চুলটা ধুয়ে ফেলুন। প্রসঙ্গত, আমলা, চুলকে আদ্র রাখতে সাহায্য় করে।

৭. কোমল চুল পেতে:

চুলটা কেমন রুক্ষ হয়ে যাচ্ছে? নামি দামি শেম্পু এবং হেয়ার প্রোডাক্ট ব্য়বহার করেও কোনও কাজ হচ্ছে না? তাহলে আজ থেকেই চুলে লাগাতে শুরু করুন জবা ফুলের তেল। পরিমাণ মতো জবা পুলের তেল নিন। তরপর সেটি কয়েক মিনিট গরম করুন। যখন দেখবেন তেলটা ভালো রকম গরম হয়ে গেছে, তখন তাতে ১-২ চামুচ ছোলার ময়দা মিশিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে ফেলুন। এবার সেই পেস্ট স্কাল্পে লাগিয়ে ৩০ মিনিট রেখে দিন। তারপর মাথাটা ধুয়ে ফেলুন।

৮. ঘন চুল পেতে:

অল্প করে জবা ফুলের তেল নিয়ে তাতে পরিমাণ মতো কারি পাতার পাউডার যোগ করে বয়েল করুন। যখন দেখবেন তেলটা ভাল মতন গরম হয়ে গেছে, তখন সেটি স্কাল্পে লাগান। কয়েক মিনিট রেখে ভালো করে চুলটা ধুয়ে ফেলুন।

Read more about: তেল, চুল
English summary
Hibiscus, popularly known as gudhal in India, is extremely beneficial for our hair and skin. The hibiscus flower along with the leaves can help to fight against dandruff issue, hair fall problems, baldness etc. Here, we shall concentrate on the benefits of hibiscus oil for hair.
Please Wait while comments are loading...