দূষণ থেকে ত্বকে বাঁচানোর ৭টি উপায়

Posted By:
Subscribe to Boldsky

দূষণ থেকে ত্বকে বাঁচানোর ৭টি উপায়

দূষণের কারণে শরীরের নানা ধরনের ক্ষতি হয়ে থাকে। তবে সবথেকে বেশি ক্ষতি হয় ত্বকের। মাত্রাতিরিক্ত পলিউশনের কারণে ত্বক ড্রাই হয়ে যাওয়া থেকে শুরু করে স্কিনের ইলাস্ট্রিসিটি নষ্ট হয়ে যাওয়ার মতো প্রায় সব ধরনের অসুবিধাই হতে পারে। তাই সাবধান!

সম্প্রতি প্রকাশিত এক গবেষণা পত্র অনুসারে যেসব মেয়েরা অতিমাত্রায় দূষণের কবলে থাকা শহরে বাসবাস করেন তাদের কম বয়সেই চামড়া কুঁচকে যাওয়া, ব্রণ হওয়া, ত্বকে কালো ছোপ ছোপ দাগ এবং সার্বিকভাবে ত্বক খারাপ হয়ে যাওয়ার মতো সমস্য়া দেখা দিতে পারে।

এখানেই শেষ নয় দীর্ঘদিন দূষণের কবলে থাকলে ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি হয়ে যায়। আর একবার এমনটা হয়ে গেলে আর কিছুই করার থাকে না। তাই তো এই প্রবন্ধে এমন কিছু নিয়ম সম্পর্কে আলোচনা করা হল, যেগুলি মেনে চললে দূষণের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে ত্বককে বাঁচিয়ে রাখা অনেকটাই সম্ভব হবে।

এই লেখায় যে পদ্ধতিগুলির উল্লেখ করা হল, সেগুলি ত্বকেকে সুস্থ রাখার পাশাপাশি সার্বিকভাবে সৌন্দর্য বাড়াতে দারুন কাজে আসে। তাহেল আপেক্ষা কিসের। এক্ষুনি পড়ে ফেলুন এই প্রবন্ধটি।

১. ত্বককে সব সময় পরিষ্কার রাখবেন:

১. ত্বককে সব সময় পরিষ্কার রাখবেন:

দিনে কম করে দুবার ভালো কোনও ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধোবেন। এই অভ্য়াস আপনার ত্বককে প্রকৃতিতে উপস্থিত নানা ধরনের ক্ষতিকর রেডিকেলের হাত থেকে রক্ষা করবে। ফলে বাড়বে আপনার সৌন্দর্য। সেই সঙ্গে ত্বকের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও কমবে।

২. স্কার্ব ব্য়বহার করুন:

২. স্কার্ব ব্য়বহার করুন:

দূযণের কারণে আমাদের ত্বকের উপরিঅংশে নানা ক্ষতিকর উপাদান ঘর বানানোর সুয়োগ পেয়ে যায়। ঠিক সময়ে যদি এই সব ক্ষতিকর পার্টিকালসগুলিকে ধুয়ে ফেলা না যায়, তাহলে দেখা দিতে শুরু করে নানা ত্বকের অসুবিধা। তাই বাড়িতে তৈরি কোনও স্কার্ব দিয়ে সপ্তাহে অন্তত একবার মুখ পরিষ্কার করুন। দেখবেন আর কোনও সমস্য়াই হবে না।

৩. ত্বকে ভিটামিন-ই এবং সি লাগান:

৩. ত্বকে ভিটামিন-ই এবং সি লাগান:

স্কিনকে ভালো রাখতে এই দুটি উপাদানের কোনও বিকল্প নেই। তাই দূষণ থেকে ত্বককে বাঁচাতে এই দুই ভিটামিনের সাহায্য় নিতেই পারেন। আসলে ভিটামিন ই এবং সি ভিতর থেকে ত্বককে পুষ্টি জোগায়। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই দূষণের কোনও প্রভাব পড়তে পারে না ত্বকের উপর। আর এমনটা হলে এমনিতেই ত্বক সুন্দর ও প্রাণচ্ছল হতে শুরু করে।

৪. ঘরোয়া চিকিৎসা শুরু করুন:

৪. ঘরোয়া চিকিৎসা শুরু করুন:

ত্বকের সৌন্দর্যতা বাড়াতে নানা রকমের কেমিকেল দেওয়া বিউটি প্রোডাক্ট ব্য়বহার না করে ঘরোয় পদ্ধতিতে বানানো নানা টোটকার সাহায্য় নিন। কারণ ঘরোয়া চিকিৎসায় যেসব প্রাকৃতিক উপাদানগুলি ব্য়বহার করা হয় সেগুলির বেশিরভাগই অ্যান্টি অক্সিডেন্ট এবং নানা রকমের পুষ্টিকর উপাদানে পরিপূর্ণ। ফলে ত্বক এমনিতেই সুন্দর হতে শুরু করে। তাছাড়া বাজার চলতি বিউটি প্রডোক্টগুলির কমবেশি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। কিন্তু এইসব ঘরোয়া উপাদানগুলির কোনও সাইড এফেক্ট নেই বললেই চলে।

৫. ত্বককে প্রতিনিয়ত আদ্র রাখুন:

৫. ত্বককে প্রতিনিয়ত আদ্র রাখুন:

আজকের এই পলিউটেড দুনিয়ায় ত্বককে যদি ভালো রাখতে হয়, তাহলে স্কিনের আদ্র থাকাটা খুব জরুরি। আর কীভাবে করবেন এমনটা? খুব সহজ! দিনে পর্যাপ্ত জল পান করুন। এমনটা করলে ত্বক ভেতর থেকে সুন্দর হয়ে উঠবে। এখানেই শেষ নয়। এর সঙ্গে ঘরোয় উপায়ে বানানো কোনও ফেস মিস্টও ব্য়বহার করতে হবে। এই দুটি নিয়মের দিকে খেয়াল রাখবেন তো ত্বক এমনিতেই দেখবেন সুন্দর হয়ে উঠছে।

৬. বাইরে বেরনোর আগে সানসক্রিন লাগানো মাস্ট!

৬. বাইরে বেরনোর আগে সানসক্রিন লাগানো মাস্ট!

পরিবেশ দূষণের পাশাপাশি সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মির হাত থেকে ত্বককে বাঁচাতে সানসক্রিন মাখাটা জরুরি। তাই আজই একটা ভালো স্নাসক্রিন কিনেন এবং সেটির ব্য়বহার শুরু করুন। খুব ভালো উপকার পাবেন।

৭. মাছের তেল লাগান ত্বকে:

৭. মাছের তেল লাগান ত্বকে:

মাছের তেলে ওমেগা ত্রি ফ্য়াটি অ্যাসিড থাকায় এটি ত্বকের ক্ষত দূর করতে সাহায্য় করে। শুধু তাই নয় ত্বককে ভেতর থেকে সুন্দর করে তুলতেও এর কোনও বিকল্প নেই। তাই আজ থেকেই ব্য়বহার শুরু করুন এটির। দেখবেন অল্প দিনেই ফল পাচ্ছেন হাতেনাতে।

English summary
It's common knowledge that exposure to pollution adversely affects the health and appearance of your skin. It causes your skin to lose its moisture and elasticity.
Please Wait while comments are loading...